মুন্সীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী মঠগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে

মুন্সীগঞ্জের প্রাচীন নাম বিক্রমপুর। প্রাচীনকাল থেকে এ জেলার ঐতিহ্য বহন করে ‍আসছে অসংখ্য মঠ। ছোট-বড় মিলিয়ে এ জেলায় মোট ২৬টি মঠ রয়েছে। হারিয়েও গিয়েছে বেশ কয়েটি। বিস্তারিত… »

বল্লাল সেনের রামপাল দীঘি বেদখল

আড়াই বছর আগে রামপাল দীঘির ২৬ শতাংশ জমি একই এলাকার মরন দালালের পরিবারের কাছ থেকে ক্রয় করেন সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের দালালপাড়া গ্রামের মো. সালাউদ্দিন। এর পর জমিতে মাটি ভরাট করে ভবন নির্মাণ করেন। বিস্তারিত… »

বল্লাল সেনের দিঘি বাস্তবে নেই, ওয়েবসাইটে আছে

খালের মতো দেখতে এই জমিটি এখন বল্লাল সেনের দিঘির স্মৃতিচিহ্ন। দিঘির জায়গায় বাড়ি তুলেছেন একজন l প্রথম আলোসরকারি তথ্য বাতায়নে মুন্সিগঞ্জ জেলার অন্যতম একটি দর্শনীয় স্থান হিসেবে হাজার বছরের বিস্তারিত… »

বিক্রমপুরের হারিয়ে যাওয়া মহারাজা রাজবল্লভের রাজপ্রাসাদ

ফাহিম ফিরোজ: মহারাজা রাজবল্লভের বিক্রমপুরের হারিয়ে যাওয়া রাজপ্রাসাদ। ২৭৮ বছর পর আবার তা খোঁজে পাওয়া গেল। এত দিন পর্যন্ত কেউ জানতো না এটি কোন মহারাজার। তার নাম ছিল মহারাজা রাজবল্লভ সেন। বিস্তারিত… »

কালের সাক্ষী বিক্রমপুর-মুন্সীগঞ্জ

লিয়াকত হোসেন খোকন
মুন্সীগঞ্জ জেলার চারদিকে নদী বেষ্টিত। এই জেলার দক্ষিণে পদ্মা নদী, পূর্বে মেঘনা নদী এবং উত্তরে ধলেশ্বরী নদী। মুন্সীগঞ্জ জেলার নামকরণে বিভিন্ন জনশ্রুতি রয়েছে। ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে ইদ্রাকপুর কেল্লার ফৌজদারের নামানুসারে এই জায়গার নাম ছিল ‘ইদ্রাকপুর’। চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের সময় রামপালের কাজী কসবা গ্রামের মুন্সী এনায়েত আলী সাহেবের জমিদারীভুক্ত হওয়ার পর ইদ্রাকপুর মুন্সীগঞ্জ নামে পরিচিতি পেতে শুরু করে। বিস্তারিত… »