টঙ্গীবাড়ীতে লিজের জমি দখল নেওয়ার পর প্রকৃত লিজধারীদের উচ্ছেদের পায়তারা

টঙ্গীবাড়ী উপজেলার নশংকর গ্রামে পুলিশ ও প্রভাবশালী আ”লীগ নেতার ইন্দনে লিজের জায়গা দখল নেওয়ার পর প্রকৃত লিজধারীদের উচ্ছেদের পায়তারা চলছে। অবৈধ লিজধারীরা প্রকৃত লিজধারীদের হুমকি ধামকি এমনকি রাতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করছেন। এতে প্রকৃত লিজধারীরা বাধ্য হয়ে মুন্সীগঞ্জ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছে। এর পরেও হুমকি ধামকি অব্যাহত থাকায় চরম আতংঙ্কে রয়েছে ভূক্তভোগী পরিবারগুলো।

স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, কামারখাড়া ইউনিয়নের নয়শংকর গ্রামের মৃত কলিমউদ্দিন কাজী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ভিপি কেইস ১২০/৭৭ মূলে নয়সংকর মৌজার ৩৮১/১ এবং ১৪৯ খতিয়ানের ৩১৮, ৩২০,৩২০/৭৫৩ দাগে মোট ৮৭ শতাংশ ভুমি ১৯৭৭ সালে লিজ নেয়। লিজকৃত জমিতে বসতবাড়ী স্থাপন এবং চাষাবাদ করে আসছিলো মৃত কলিমউদ্দিন ।

কলিমউদ্দিন মৃত্যুর আগে ৫ ছেলে ১. আবুল কাজী, ২.আবু তাহের কাজী, ৩.আবু বক্কর কাজী, ৪.কাসেম কাজী, ৫.আকবর কাজী এবং ১ কন্যা ফেরদৌসি বেগমকে ওয়ারিশ রেখে গেলেও তার লিজকৃত জমি তার ৩ ছেলে আবুল কাজী, আবু তাহের এবং আবু বক্করের নামে নন জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে লিজকৃত ভুমির মালিকানা হস্তান্তর করে দখল বুঝিয়ে দিয়ে যান । সেই থেকে ওই জমি কলিমউদ্দিনের উক্ত ৩ পুত্র ভোগদখল করে আসলেও এখন প্রভাবশালী এক নেতার ইন্দনে কালিমউদ্দিনের অপর ২ ছেলে আকবর কাজী, কাসেম কাজী এবং কন্যা ফেরদৌসি বেগম ভাড়াটিয়া লোক এনে ওই জমির মধ্যে থাকা পুকুরের পরিত্যাক্ত পার দখল করে ওই স্থানে ঘর নির্মাণ করে প্রকৃত লিজধারীদের উচ্ছেদের পায়তারা চালাচ্ছেন । তারা সম্পত্তি দখলে না থাকলেও সকল ওয়ারিশদের নাম দিয়ে একটি ডিসিআর কেটে এনে সম্পত্তির ওয়ারিশ দাবি করছে।

এ ব্যাপারে ওই লিজ জমি দখলে থাকা আবুল গংরা জানান, আমার বাবা আমাদের ৩ ভাইয়ের নামে উক্ত জায়গা লিখে দিয়ে গেছে। দির্ঘদিন যাবৎ আমরা জমি ভোগদখল করতাছি। কিন্তু বর্তমানে আমার অন্য ভাই বোনরা পুলিশ ও সন্ত্রাসী দিয়ে আমাদের জমি দখল করছে। তবে অবৈধ দখলকারী আকবর কাজি দখলের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, আমরা একই পিতার সন্তান তবে কেন জমি পাবনা। এ ব্যাপারে কামরাখারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন হালদার বলেন, আমি একজন জনপ্রতিনিধি হিসাবে আকবর কাজী গংদের বলেছি লিজের জমির কোন ওয়ারিশ হয়না । আবুল কাজী গংরা দীর্ঘ বছর ধরে দখলে আছে । তোমরা সন্ত্রাসী দিয়ে অবৈধ দখল করার চেষ্টা করিও না কারন এটা সরকারী সম্পত্তি । তারা আমার কোন কথা শুনেনা ।

বিক্রমপুর চিত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *