শ্রীনগরে এক মাসের ব্যবধানে এক ধর্ষকের বিরুদ্ধে দুটি ধর্ষণ মামলা

সবুজ আলী নামের এক সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে এক মাসের মধ্যে দুটি ধর্ষণ মামলার অভিযাগ পাওয়া গেছে। এতে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল সৃষ্টি হয়েছে। এতে ধর্ষক আতঙ্কে দিনকাটাতে হচ্ছে কাঠালবাড়ী গ্রামের লোকজনকে। ঘটনাটি ঘটেছে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাঘরা ইউনিয়নের কাঠালবাড়ী গ্রামে। এ ঘটনায় শ্রীনগর থানায় পৃথক ভাবে দুটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার পড়ে আসামী গ্রেপ্তার না হওয়ায় ধর্ষিতাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

জানা যায়, শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া ইউনিয়নের কাঠালবাড়ী গ্রামের হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামী আনোয়ার আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম সবুজ গত ২২ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায় কাঠালবাড়ী গ্রামের এক কৃষকের স্বামী পরিত্যাক্ত মেয়ে (১৯) এর ঘরে ডুকে তাকে জড়িয়ে ধরে জোর পূবক ধর্ষনের চেষ্টা করে। এসময় মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোজন ছুটে আসলে ধর্ষক সবুজ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয়রা তাকে ধাওয়া করে। ধাওয়া খেযে ধর্ষক সবুজ পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে গত ২৭ র্মাচ আদালতের নির্দেশে শ্রীনগর থানায় অভিযুক্ত সুবজ আলীর বিরুদ্ধে ধর্ষনেণর চেষ্টার অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধনী ২০০৩ এর ৯(৪) ধারায় ধর্ষিতা নিজে একটি মামলা দায়ের করেছে। যার মামলা নং ৪০/১১৭। কিন্তু মামলার হলেও আসামী গ্রেপ্তার না হওয়ায় মামলার বাদীকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে ধর্ষক সবুজ আলী।

মামলার বাদী জানায়, মামলার করার পর হতে আসমী সবুজ ও তার পরিবারে লোকজন মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। যার কারণে চরম সঙ্কায় দিন কাটাতে হচ্ছে । তারা আসামী সবুজকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন।

দ্রুত আসামীকে আইনে আওতায় আনা হবে জানিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকতা এস আই তাজউদ্দিন জানান, আদালতের নির্দেশে একটি ধর্ষনের চেষ্টার মামলা হয়েছে। আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এর আগে গত ২৫ ফেব্রুয়ারী অপর আরেক মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে এই ধর্ষকের বিরুদ্ধে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারী দুপুরে সবুজ আলীর নিজ বাড়ীতে উত্তর কামারগাঁও গ্রামে মজিবর রহমানের স্ত্রী-কে জোর পূর্বক গণ ধর্ষণ করে। উক্ত ধর্ষণের বিষয়ে গত ২৫ ফেব্রুয়ারী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধনী ২০০৩ এর ৯(৩) ধারায় কাঠালবাড়ীর আনোয়ার আলী মাদবরের ছেলে শহিদুল ইসলাম সবুজ ও তার সহযোগি আক্কাছকে আসামী করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। যাহার শ্রীনগর থানার মামলা নং-১(৩)২০১৮।

জনকন্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *