গজারিয়ায় ছাত্রলীগ নেতার আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে ভাইরাল

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের আপত্তিকর ছবি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয় (১৮ ফেব্রুয়ারি) গতকাল। এ নিয়ে সরগরম গোটা এলাকা ,শুরু হয়েছে সমালোচনার ঝড়। আলোচিত এই ছাত্রলীগ নেতার নাম মাসুম সরকার। সে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক। সে বাউশিয়া ইউনিয়নের চর বাউশিয়া বড় কান্দি গ্রামের মৃত ইয়াজদানী মিয়ার ছেলে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার এক বিদেশ প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে ছাত্রলীগ নেতা মাসুমের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। স্বামী দীর্ঘদিন বিদেশ থাকার সুবাদে তারা অবাধে মেলামেশার করার সুযোগ পায়। এসময় প্রেমের ফাঁদে ফেলে ওই গৃহবধূর সাথে তার অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে মাসুম এবং সুযোগ বুঝে তার স্থির চিত্র ও ভিডিও করে রাখে সে।

সম্প্রতি গৃহবধূর স্বামী বিদেশ থেকে আসায় তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। তবে মাসুম আগের মত সম্পর্ক চালিয়ে যেতে গৃহবধূকে চাপ দিতে থাকে তার ডাকে সাড়া না দেওয়ায় গতকাল মাসুম তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি ও কয়েকটি ফেসবুক আইডি থেকে ওই গৃহবধূর সাথে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের আপত্তিকর ছবি ছড়িয়ে দেয়। তবে সমালোচনার মুখে গতকাল সন্ধ্যায় সে তার ব্যক্তিগত আইডি থেকে ছবিটি সরিয়ে ফেলে।

ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূর সাথে কথা বলে জানা যায়, এই ঘটনার পর থেকে পারিবারিক ও সামাজিকভাবে তাকে অনেক ছোট হয়েছে। স্বামীর সাথে তিক্ততা শুরু হয়েছে, লোকলজ্জার ভয়ে গৃহবন্দি সে। আত্মহত্যা ছাড়া তার আর কোন পথ খোলা নেই।

এ ঘটনায় সমালোচনার ঝড় ওঠেছে গোটা এলাকায়। বিষয়টি ছাত্রলীগের ভাবমূর্তির জন্য হুমকিস্বরূপ বলছেন ছাত্রলীগের বর্তমান ও প্রাক্তন নেতাকর্মীরা।

এই বিষয়ে জানতে বাউশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো:মিজানুর রহমানের প্রধানের সাথে যোগাযোগ করা হলে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন অপকর্মকারীকে কখনই প্রশ্রয় দেবেন না তিনি। তিনি এ ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন।

এদিকে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে আলোচিত ওই ছাত্রলীগ নেতা বলেন, আমার নামে ভুয়া একটি ফেসবুক আইডি খুলে কে বা কারা এই ছবি পোষ্ট করেছে জানা নেই। আমি এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। এছাড়া যেই মেয়ের বিষয়টি বলা হচ্ছে তাদের থেকে কোন অভিযোগ নেই বলেও জানান তিনি।

বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *