লৌহজংয়ে ভারতীয় নারীর রহস্যজনক মৃত্যু

ফাতেমা আক্তার ওরফে দেবী (২২) নামে ভারতীয় এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার বিকেলে লৌহজং উপজেলার হাট ভোগদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার বিকেলে মেয়েটিকে ঘরে রশিতে ঝুলতে দেখা যায়।

মেয়েটির স্বামীর পরিবার বলেছে, মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে। আত্মহত্যা করার পূর্বে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল। মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা ছিল বলে জানা যায়। প্রতিবেশীরা বলেছে, স্বামী রিমু নেশাখোর। প্রায়ই সে বউকে মারধোর করতো। ঘটনার দিন ও আগের দিন পড়শীরা ঝগড়া শুনতে পেয়েছেন। এমনকি মেয়েটির মৃত্যুর পর তড়িঘড়ি করে মাটি দেওয়ার প্রস্তুতি নেয় রিমুর পরিবার। কবরও খোঁড়া হয়েছিল বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। লৌহজং থানা পুলিশ জিডি মূলে মেয়েটির লাশ ময়নাত দন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রতিবেশী জানান, মেয়েটিকে পিটিয়ে মেরে রশিতে ঝোলানো হয়েছে।

ভালোবাসার টানে বাংলাদেশী যুবককে বিয়ে করেছিল ভারতীয় ওই তরুণী দেবী। ধর্মান্তরত হয়ে নাম হয় ফাতেমা আক্তার। কয়েক বছর আগে লৌহজং উপজেলার বেজগাঁও ইউনিয়নের হাট ভোগদিয়া গ্রামের সালাম মৃধার ছেলে রিমু মৃধা কাজের সন্ধানে ভারতের তামিলনাড়–তে যায়। সেখানে দেবী নামে একটি হিন্দু মেয়ের ভালোবাসার সম্পর্কে জড়ায়। বছর দেড়েক আগে ভিসা ছাড়াই সীমান্ত পারি দিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে ওরা দুজন। এখানে এসে মুসলমান হয় মেয়েটি।

লৌহজং থানার ওসি মো. আনিচুর রহমান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তামিল নাড়–তে মেয়েটির পরিবারকে অবগত করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গতকাল মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক ম্যাডিক্যাক অফিসার (আরএমও) ডা. এসএম শাখাওয়াত জানান, ময়না তদন্ত শেষ হলেও ভিসেরা রিপোর্টের জন্য কিছু আলামত সয়গ্রহ করা হয়েছে। তবে মৃত্যু সম্পর্কে কিছু বলতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।

জনকন্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *