রংপুরে আওয়ামী লীগ হারেনি, হেরেছে ঝন্টু

নূহ-উল-আলম লেনিন : রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী নির্বাচন করার বিষয়টি পুরোপুরি সঠিক ছিল না। সেই কারণেই আওয়ামী লীগের ব্যানারে মেয়র পদে সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুর নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় লীগ দলীয় প্রার্থীর ভরাডুবি হয়েছে। যে কোনো কারণে হয়তো মেয়র প্রার্থী ঝন্টুর জনপ্রিয়তা তলানিতে ছিল। সেই কারণেই তিনি এতো ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন। কেননা, আওয়ামী লীগের যদি জনপ্রিয়তা সেখানে একেবারেই না থাকে, তাহলে এতোগুলো কাউন্সিলর কিভাবে জিতে আসল? রংপুরে আওয়ামী লীগ হারেনি, হেরেছে ঝন্টু। ভোটের ফলাফল তেমনটাই প্রমাণ করে বলে মনে করি।

আবার বাস্তবতার দিকে তাকালে দেখা যায়, একটা স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ফলাফল দিয়ে কোনো সরকার বা কোনো দলের জনপ্রিয়তা পরিমাপ কারা যায় না। রংপুর সিটি নির্বাচনও এই বিবেচনার বাইরে নয়। জাতীয় নির্বাচনে বড় দলের ব্যানারে একজন অজনপ্রিয় প্রার্থীও কখনো কখনো জয়লাভ করতে পারে। কিন্তু স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রার্থী এবং স্থানীয় রাজনীতিতে জনপ্রিয়তা মৌলিক সমীকরণ হিসাবে কাজ করে।

রংপুর জাতীয় পার্টির নিজস্ব ঘাটি। সেখানে তাদের ভোট ব্যাংক রয়েছে। আবার ঝন্টু পাঁচ বছর মেয়র ছিল। একজন ব্যক্তি ক্ষমতায় থাকলে তার জনপ্রিয়তা নানা কারণে কমে যায়। সবকিছু মিলিয়ে হিসাব করলে দেখা যায়, ঝন্টুর পরাজয়ের যৌক্তিক অনেক কারণ বেরিয়ে আসছে। আর রংপুর জাতীয় পার্টির ঘাটি হওয়ার কারণে আমাদের তো জিতে আসার কথাও নয়। তাই রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল দেখে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা পরিমাপের কোনো সুযোগ নেই।

পরিচিতি : সাবেক সভাপতি মন্ডলির সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
মতামত গ্রহণ : লিয়ন মীর
সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

আমাদের সময়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *