মাননীয় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী, গজারিয়াবাসীর অপরাধটা কি?

মোস্তফা সারোয়ার বিপ্লব: মান্যবর মন্ত্রী মহোদয়, গজারিয়ায় জনতার দুর্ভোগ, বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার লেখেছি। বারবার একই বিষয়ে লেখতে লজ্জা লাগে। এলাকায় থাকি, মুক্তিযোদ্বের সপক্ষের দল আওয়ামীলীগের একজন নগন্য কর্মী বিধায় , বিবেকের তাড়নায় গজারিয়ায় জনতার দুর্ভোগ প্রসঙ্গটি নিয়ে পুর্নরায় লেখতে বাধ্য হলাম। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়, মেঘনা সেতু এবং মেঘনা দাউদকান্দি সেতুর দুই পাশেই লেগুনা পরিবহন চলছে। শুধু দুই সেতুর মাঝখানে গজারিয়া উপজেলার অংশে লেগুনা বন্ধ। এতে জনতার দুর্ভোগের মাত্রা কতটা বেড়েছে তা লেখে বর্ননা করা অসম্ভব। এদিকে বেশ কয়েক দিন আগেই শুরু হয়েছে জে, এস,সি পরীক্ষা। ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার হলে যাতায়াতে কতটা কষ্ট হচেছ, তা নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা সম্ভব নয়।

মান্যবর মন্ত্রী মহোদয়, আমাকে ব্যক্তিগত ভাবে চিনেন, ” সাপ্তাহিক ২০০০, পরবর্তীতে সাপ্তাহিক নিউজ ম্যাগাজিনে আপনার দুটো সাক্ষাতকার ছাপা হয়েছিল । সাক্ষাতকার দুটো নিয়েছিলাম আমি নিজেই। আপনাকে যতদুর চিনি এবং জানি, একই মহাসড়কে দুটো আইন আপনার জানামতে চলছে, তা বিশ্বাস করতে এবং ভাবতে অবাক লাগছে। মান্যবর মন্ত্রী মহোদয় এক চুল পরিমান মিথ্যা বলেনি, সোনারগাও এবং দাউদকান্দিতে লেগুনা চলছে, বন্ধ শুধু আমাদের গজারিয়ায়।এটাই চরম সত্য ও বাস্তব কাহিনী।

মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়, গজারিয়ায় জনতার দুর্ভোগ বিষয়টি নিয়ে লেখেছি একাধিক বার, পাশাপাশি বেশ চেষ্টা তদবীরও করেছি লেগুনা পরিবহন চালু করার বিভিন্ন প্রক্রিয়াগত দিক নিয়ে। মাননীয় মন্ত্রী ঘুরেফিরে একটা বিষয়ে অবগত হয়েছি, মুন্সিগন্জের এক জনপ্রতিনিধির উপর রাগের বশবর্তী হয়ে আপনার কঠোর সিদ্বান্তে, গজারিয়ায় লেগুনা বন্ধ, শত চেষ্টা তদবীরেও কোন কাজে আসছেনা। মাননীয় মন্ত্রী, আপনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক, পাশাপাশি আমি এই দলটির বাউশিয়া ইউনিয়ন শাখার সাধারন সম্পাদক। আপনি আমার নেতা, কর্মীদের দেখ ভারের দায়িত্বও আপনার উপরেই বর্তায়। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। একদিকে জনতার দুর্ভোগ অপর দিকে ভোটের রাজনীতি। দুটো কারনেই লেগুনা পরিবহন কিংবা বিকল্প পরিবহন চালু করা অনিস্বার্য।

গজারিয়া আলোড়ন