সিরাজদিখানে ৯ হিন্দু পরিবারের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ

সীমানা বিরোধ নিয়ে একই বাড়ীর
নাছির উদ্দীন: সিরাজদিখানে জমি সংক্রন্ত বিরোধ নিয়ে একই বাড়ীর ৯ টি হিন্দু পরিবারের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার বয়রাগাদী ইউনিয়নের ছোটপাউলদিয়া গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পাশে দীর্ঘদিন যাবত লক্ষণ চন্দ্র দেবনাথের ছেলে দুলাল চন্দ্র দেবনাথের সাথে জোরপূর্বক বাড়ীর সীমানা নিয়ে ধীরেন চন্দ্র দেবনাথের ছেলে পরিতোষ চন্দ্র দেবনাথ বিরোধ করে আসছে। সি এস রেকর্ড থেকে বাপ দাদার ভিটা বাড়ীতে দুলাল চন্দ্র দেবনাথসহ ৯ টি হিন্দু পবিরারের বৃদ্ধ, শিশু ও মহিলাসহ ৩৯ জন সদস্য বসবাস করে। এ পরিবার গুলো পরিতোষ দেবনাথের বাড়ীর উপর দিয়ে যাতায়াত করে আসছিল। গত ৩ মাস আগে একবার বাঁশ দিয়ে যাতায়াতের রাস্তাসহ সর্ম্পুন্ন সীমানা বেড়া দেয়। সে সময় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গাজী মো. আলাউদ্দিন রাস্তাটি খুলে দেয়। স্থানীয় প্রভাবশালীদের হাত করে গত ২ মাস আগে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে জোরপূর্বক বাঁশ দিয়ে যাতায়াতের রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। বর্তমানে পরিবার গুলোর সদস্যরা যাতায়াতের কোন রাস্তা না থাকায় অন্যার বাড়ীর টয়লেটের নিচ দিয়ে বাধ্য হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। কিছুদিন আগে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানের সময় হাতে পায়ে ধরে বলা হয়েছিল অনুষ্ঠানের দিনে যাতে রাস্তাটা খুলে দেওয়া হয়। তাতে কোন লাভ হয়নি তাই বাধ্য হয়ে বরযাত্রী টয়লেটের পাশ দিয়ে যেতে হয়। এমনকি তাদেরকে পূজার ঘর পূজা দিতে দিচ্ছে না। পরিবার গুলো মানবতার জীবন যাপন করেছে।

দুলাল দেবনাথ জানান, বাড়ী নিয়ে বিরোধ থাকলে সমাধান করা হবে। এভাবে মানুষের যাতায়াতের রাস্তা কোন মানুষ বন্ধ করে না। আমাদের পূজা করতেও যেতে দিতেছে না। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের বাড়ীঘর বিক্রি করে ভারত চলে যেতে হবে।

পরিতোষ দেবনাথ জানান, আমার জায়গায় তাদের বসত ঘর পরেছে। তাদের ঘর ভাঙ্গলে রাস্তা খুলে দিবো। যতদিন যাবত ঘর না ভাঙ্গবো ততদিন রাস্তা বন্ধ থাকবো।

বয়রাগাদী ইউপি চেয়ারম্যান গাজী মো. আলাউদ্দিন জানান, বাড়ীর সীমানা নিয়ে বিরোধ ছিল। এর আগে একবার যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে ছিল আমি সাথে সাথে রাস্তা খুলে দেই। এখন আবার রাস্তা বন্ধ করে দিলে আমি তাদের কে বলেছি লিখিত ভাবে পরিষদকে জানাতে। লিখিত ভাবে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নজরুল ইসলাম জানান, রাস্তা বন্ধ করে থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যারা মানুষের চলাচলের পথ বন্ধ করে দের আসলে তারা ভালো মানুষ না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানবীর মোহাম্মদ আজীম জানান, এ ধরনের তথ্য আমার জানা নাই। এ রকম কোন ঘটনা ঘটে থাকলে ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা ভূমি অফিসের মাধ্যমে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।