বঙ্গবন্ধুকে জানতে জেলা প্রশাসকের তথ্য বোর্ড উপহার, আর মিরকাদিমকে বদলে দেবার অঙ্গিকার মেয়র শাহীনের

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলাস্থ রিকাবীবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনশ শিক্ষার্থীদের মাঝে মেয়র শাহীনের অর্থায়নে বিনামূল্যে স্কুলের পোষাক বিতরণী অনুষ্ঠানে, মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা বঙ্গবন্ধুকে জানতে, স্বাধীনতার চেতনা ধরে রাখতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ইতিহাসের মহা নায়ক বঙ্গবন্ধুর জীবনীকে সংক্ষিপ্ত আকারে তোলে ধরে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক শিশু-কিশোর উপযোগী তথ্য বোর্ড প্রদান করেন। সেই সাথে একই বিদ্যালয়ের ছাত্রীদেরকে হারমনিয়াম ও তবলা উপহার দেন জেলা প্রশাসক।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সায়লা ফারজানা তাঁর বক্তব্যের শুরু থেকেই কবিতার মাধ্যমে সেকালের নারীদের উন্নতর জীবন গড়তে কতোটা পরিশ্রমি হতে হয়েছে, কতোটা কষ্ট করে তাদের সাফল্যের শিখরে উঠতে হয়েছে সে বিষয়টি তোলে ধরেন। সেই সাথে তিনি বর্তমান সহজ পরিস্থির কথা ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে তোলে ধরে বলেন, বর্তমানে আমাদের সমাজে ভালো ভালো ক্ষেত্র তৈরী হয়েছে, ছাত্রীদের সে সুযোগ গ্রহণ করার পাশাপাশি, অভিভাবকদের সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে মেয়েদের সুযোগ্য করে তুলতে হবে। এর পাশাপাশি তিনি বাল্যবিবাহ রোধ করতে মেযেদের লেখাপড়ার পাশে, আকাশ সংস্কৃকির কুপ্রভাব বর্জন করে খেলা ধুলা, ও বাঙ্গালী সংস্কৃতির উপর গুরুত্ব দিতে পরামর্শ প্রদান করেন।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভাস্থ স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রিকাবীবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বুধবার দুপুরে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম বলেন, মেয়েদের এক সময় সমাজের বোঝা মনে হতো। এখন সেই দিন পাল্টে গেছে। বর্তমানে মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা সমাজের বোঝা। এ প্রসঙ্গে তাঁর যুক্তিতে বলেন, মেয়েদের মানুষ করতে যতোটা সহজ,ছেলেদের ততো সহজে মানুষ করা যায়না। মেয়রা এখন দেশ পরিচালনায় অগ্রনি ভুমিকা পালন করছেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ও মিরকাদিম পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীন তাঁর বক্তব্যে বলেন, এক বছরের মধ্যে মিরকাদিম পৌরসভার রূপ বদলে যাবে। বদলে যাবে পৌরসভার রাস্তা, ঘাট। দৃশ্যমান হাসপাতাল অতি শীঘ্রই উদ্ধোধন করা হবে। ষ্টেডিয়ামের অর্থ বরাদ্দ চুড়ান্ত পর্যায়ে। তিনি আরো বলেন, সতের-আঠারো অর্থ বছরে বিদেশি সংস্থা থেকে ১৭ কোটি টাকা এই পৌরসভার জন্য বরাদ্দ পাচ্ছি। যে টাকা রাস্তা উন্নয়নের কাজে ব্যবহার করা হবে। সুতরাং আগামী এক বছরের মধ্যে পৌরসভার রূপ বদলে যাবে।

এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আরো বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( রাজস্ব) হারুনুর রশীদ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া জাহান, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম প্রমুখ।