শ্রীনগরে ষষ্ঠ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় সালিশ মিমাংসায় বখাটেকে জুতাপেটা

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে স্কুল থেকে বাড়ী ফেরার পথে ষষ্ঠ শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে এক বখাটে। এঘটনায় সালিশ ডেকে ওই বখাটেকে জুতাপেটা করে ছেড়ে দিয়েছে সালিশদাররা।

স্থানীয়রা জানায়, গত রবিবার বেলা ১১ টার দিকে ওই এলাকার ষষ্ঠ শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী ক্লাস ছুটির পর বাড়ী ফেরার পথে ব্রাক্ষ¥ন খোলা এলাকায় নির্জন রাস্তায় একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে একই এলাকার মো ঃ স্বপনের ছেলে সেকান্দার (১৯)। এসময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে আশ পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে বখাটে সেকান্দার পালিয়ে যায়। ঘটনাটি সিরাজদিখান উপজেলার কুসুমপুর বাস ষ্ট্যান্ডের পাখি টেইলার্সের মালিক মো ঃ পাখি মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করেণ বলে ওই ছাত্রী অভিযোগ করেণ। পরে সেই টেইলার্স মালিক নিজেকে গনমাধ্যম কর্মী দাবী করে আরো কয়েকজন সঙ্গী নিয়ে ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়িতে হাজির হন। এনিয়ে ওই ছাত্রীর পরিবার বিব্রতকর অবস্থায় পরেন। পরে ওই দিন বিকালে তন্তর ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য আ: আলী ও ৫ নং ওয়ার্ডের সদস্য বাদল মেম্বারের নেতৃত্বে ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়ীতে সালিশ মিমাংসা বসে। সালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বখাটে সেকান্দারকে তার বাবা জুতা পেটা করে নিয়ে যান।

আ: আলী মেম্বার ধর্ষণ চেষ্টার বিষয়টি স্বীকার করলেও সালিশে তার উপস্থিতির বিষয়টি অস্বীকার করেন। তবে মঙ্গলবার দুপুরে শ্রীনগর থানার কর্তব্যরত কর্মকর্তা এসআই তাজউদ্দিন ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়ীতে উপস্থিত হলে স্কুল ছাত্রী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেণ এবং উপস্থিত প্রতিবেশীরা দুই মেম্বারের নেতৃত্বে সালিশে জুতাপেটা হয়েছে বলে জানান। শ্রীনগর থানার এসআই তাজউদ্দিন জানান, ভিকটিম ও বখাটের বাড়ী শ্রীনগর থানায় হলেও ঘটনা স্থল শ্রীনগর থানার এরিয়া থেকে ২শ গজ দুরে সিরাজদিখান থানা এরিয়ার মধ্যে পড়ার কারণে শ্রীনগর থানা পুলিশ আইনী ব্যবস্থা নিতে পারছেনা। এব্যাপারে সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালামের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি জানান বিষয়টি সমন্ধে আমি কিছু জানিনা সুতরাং কি বক্তব্য দিব।

শ্রীনগর,মুন্সীগঞ্জ

২৬/৯/২০১৭