মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া ফেরি সার্ভিস চালু হচ্ছে

মঈনউদ্দিন সুমনঃ নৌপথে মুন্সীগঞ্জ জেলা শহর থেকে গজারিয়া উপজেলার দূরত্ব সাত কিলোমিটার। তবে গাড়ি নিয়ে ৭০ কিলোমিটার সড়কপথ ঘুরে গজারিয়ায় যেতে হয়। দীর্ঘদিনের দাবির পর অবশেষে মুন্সীগঞ্জ থেকে গজারিয়া পর্যন্ত সরাসরি ফেরি সার্ভিস চালু হতে যাচ্ছে। এতে করে দ্রুত ওই উপজেলায় যেতে পারবেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উত্তাল মেঘনা নদীর তীব্র ঢেউ পাড়ি দিয়ে মুন্সীগঞ্জ থেকে গজারিয়ায় যাচ্ছেন তাঁরা। প্রতিদিন প্রায় পাঁচ হাজার যাত্রী ঝুঁকি নিয়ে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে যাতায়াত করছেন। তবে শুধু মানুষ বা মোটরসাইকেল নিয়ে ট্রলারে যাতায়াত করা যেত। আর গাড়ি নিয়ে গজারিয়ায় যেতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ দিয়ে ঘুরে ৭০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হতো। ফেরি সার্ভিস চালু হলে গাড়ি নিয়ে সরাসরি মুন্সীগঞ্জ থেকে গজারিয়া যাওয়া যাবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) বলছে, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ফেরি সার্ভিস চালু হবে। ফেরি চলাচলের জন্য গজারিয়া প্রান্তে খননের কাজ শেষ হয়েছে। আর মুন্সীগঞ্জ প্রান্তে ড্রেজিংকাজ প্রক্রিয়াধীন।

কলেজছাত্রী ইশরাত জাহান জানান, প্রতিদিন উত্তাল মেঘনার তীব্র ঢেউয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলার দিয়ে পারাপার হতে হয়। গজারিয়া থেকে শতাধিক শিক্ষার্থী মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসে এই নৌপথেই। সন্ধ্যার পর থেকে ট্রলার চলাচল বন্ধ হওয়ায় দুর্ভোগে পড়তে হয়।
মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস জানান, স্বাধীনতার পর থেকেই এই স্বল্প দূরত্বের নৌপথ পারাপারের জন্য কোনো যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল না। এ ছাড়া গজারিয়ার সঙ্গে মুন্সীগঞ্জের সরাসরি ফেরি সার্ভিসের জন্য সংসদে এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। দীর্ঘদিনের এই দাবি প্রায় পূরণ হওয়ার পথে। তবে বন্যার পানি বেড়ে যাওয়ায় কাজটি সাময়িক বন্ধ আছে। পানি কমে গেলে কাজ আবার শুরু হবে।

বিআইডব্লিউটিএর নারায়ণগঞ্জ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী এনামুল হক মোল্লা জানান, গজারিয়া অংশের কাজ এরই মধ্যেই শেষ হয়ে গেছে। আকস্মিক মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কাজ সাময়িক বন্ধ আছে। ঈদের পরপরই কাজ আবার শুরু হবে।

এনামুল হক মোল্লা আরো জানান, ঘাট নির্মাণকাজ শেষ হলে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) সঙ্গে কথা বলে ফেরি চলাচল শুরু করা হবে। গজারিয়া উপজেলায় সড়ক যোগাযোগ চালু করার জন্য মেঘনা নদীর উভয় প্রান্তে ফেরিঘাট স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়েছে গত জুলাইয়ে। এখন মুন্সীগঞ্জ প্রান্তে চর কিশোরগঞ্জ এলাকায় ফেরিঘাট স্থাপনের কাজ চলছে। ফেরিঘাট নির্মাণের সব কার্যক্রম শেষ হলেই দুই প্রান্তে পন্টুন স্থাপন করা হবে।