টঙ্গিবাড়ীতে ইজারাহীন হাট, জমজমাট

সরকারের রাজস্ব ফাঁকি
মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বালিগাঁও পশুর হাট ইজারা দিতে পারেনি প্রশাসন। ইজারা ছাড়াই হাটটি জমে উঠেছে। গতকাল রবিবার বিকেলে বালিগাঁও বাজারে গিয়ে দেখা যায়, বাজারসংলগ্ন হাজি আমজাদ আলী মহাবিদ্যালয়ের বিশাল মাঠটিতে বাঁশ পুঁতে এর মধ্যে ত্রিপল টানানো হয়েছে। এরই মধ্যে অর্ধশতাধিক গরু উঠেছে।

এলাকাবাসী জানায়, এক সপ্তাহ ধরে প্রায় ২০-২৫ জন শ্রমিক ওই মাঠের মধ্যে বাঁশ পুঁতে গরু বাঁধার স্থান তৈরি করছে। দুই বছর আগে হাটটি স্থানীয় আনোয়ার মোল্লা ৪৩ লাখ টাকায় ইজারা নিয়েছিলেন। এর পর থেকে প্রশাসনের কতিপয় ব্যক্তির যোগসাজশে বালিগাঁওয়ের নেতারা কাউকে ইজারার দরপত্র কিনতে দেন না। প্রশাসনকে ম্যানেজ করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। গত দুই বছরে তাঁরা ইজারা বাবদ পাঁচ লাখ ২০ হাজার করে দুই বছরে মাত্র ১০ লাখ ৪০ হাজার টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছেন। এ বছরও ইজারাদার ছাড়া সাত দিন ধরে হাটের আয়োজন করা হয়েছে। বিক্রেতারা গরু নিয়ে হাটে আসতে শুরু করেছে।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সহিদুল হক পাটোয়ারী জানান, এ উপজেলার ১১টি হাটের মধ্যে ৯টি এরই মধ্যে ইজারা দেওয়া হয়েছে। তিনবার দরপত্র আহ্বান করার পরও বালিগাঁও পশুর হাটের ইজারাদার পাওয়া যায়নি। বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানানো হয়েছে।

কালের কণ্ঠ