নিমতলায় জঙ্গির সন্ধানে অভিযানে পুলিশ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানের নিমতলায় গতকাল সোমবার প্রিন্স হাউজিং কোম্পানির ‘সুখের ঠিকানা’ নামের আবাসিক এলাকায় ৫টি ৪তলা ভবনসহ প্রায় ৩০টি ভবনে জঙ্গি তৎপরতার সন্ধানে তল্লাশি কার্যক্রম চালিয়েছে পুলিশ।

সিরাজদীখান থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসানের নেতৃত্বে দেড় শতাধিক পুলিশ সোমবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত জঙ্গি তৎপরতা ও সংশ্লিষ্টতার সন্ধানে এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় সুখের ঠিকানা নামের হাউজিং কোম্পানির ৩০টি ভবনে বসবাসরত ১৬৫টি পরিবারে থাকা সকল সদস্যের বিস্তারিত পরিচয়, ভোটার আইডি কার্ড যাচাই-বাছাই করা হয়। ভবনের প্রতিটি কক্ষে তল্লাশি চালিয়ে জঙ্গি তৎপরতার কোনো আলামত আছে কি-না তা খুঁজে দেখেন পুলিশ সদস্যরা। তবে ঘণ্টাব্যাপী আকস্মিক এ তল্লাশি অভিযানে সেখানে থাকা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার কোনো আলামত পায়নি পুলিশ। পরে প্রিন্স হাউজিং কোম্পানির মালিক এম এ হালিমকে ভাড়াটিয়া ফরম এবং ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহে ফরম বিতরণ করে পুলিশ।

অন্যদিকে দেড় শতাধিক পুলিশের আকস্মিক এ অভিযানের খবর পেয়ে নিমতলা ও আশপাশ এলাকার মানুষের মধ্যে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়া গেছে_ এমন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে প্রথমে আতঙ্ক দেখা দিলেও পুলিশের তৎপরতা দেখতে কৌতূহলী মানুষ আবাসিক এলাকার আশপাশে ভিড় জমায় বলে জানা গেছে।

থানার ওসি মো. ইয়ারদৌস হাসান করে জানান, নিমতলায় সুখের ঠিকানা নামের আবাসিক এলাকায় বসবাসরত ১৬৫টি পরিবার সকলেই ভাড়াটিয়া। তাদের বাড়ি দেশের বিভিন্ন জেলায়। এসব পরিবারের সদস্যদের কেউ জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত আছে কি-না এবং আবাসিক এলাকার মালিকপক্ষ সরকারি নির্দেশনা মেনে পরিবারগুলোকে ভবন বা ফ্ল্যাট ভাড়া দিয়েছে কি-না, তা যাচাই-বাছাই করতেই অভিযান চালানো হয়। তল্লাশি ও যাচাই-বাছাইকালে জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কোনো তথ্য-উপাত্ত বা আলামত পাওয়া যায়নি। পরে ভাড়াটিয়া ফরম এবং ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহে ফরম বিতরণ করা হয়।

সমকাল