শ্রীনগরে প্রতি বছর মাছ উদ্বৃত্ত প্রায় ৩ হাজার মেট্রিক টন

সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভায় মৎস কর্মকর্তা
আরিফ হোসেন: ”মাছ চাষে গড়বো দেশ বদলে দিবো বাংলাদেশ”এই স্লোগানকে সামনে রেখে শ্রীনগরে শুরু হয়েছে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ। মৎস সপ্তাহ উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা মৎস্য অফিসে শ্রীনগর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। এসময় উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মোহাম্মদ জিয়াউল হক জুয়েল শ্রীনগর মৎস অফিসরে বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন।

তিনি আরো জানান,জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষ্যে শ্রীনগর উপজেলায় বর্নাঢ্য র‌্যালী,পোনা অবমুক্তকরন, এবং আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।এ ছাড়াও হাট বাজার,স্কুল কলেজ,প্রমান্যচিত্র প্রদর্শন সহ বর্তমান সরকারের অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনা করা হবে এবং মৎস আইন বাস্তবায়নে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা সহ পুরস্কারের আয়োজন করা হয়েছে।

শ্রীনগর উপজেলায় মাছের বর্তমান উৎপাদন ৭৮৯৮.৬৩ মে.টন এবং বর্তমান চাহিদা ৫০০৫.৩৭ মে.টন। ফলে শ্রীনগর উপজেলায় উদ্বৃত্ত মাছের পরিমান ২৮৯৩.২৬ মে.টন। জাটকা মৌসুমে আমরা জেলেদের মাছ ধরা থেকে বিরত রাখার জন্য এ বছর ৩৯২ জন জেলের মধ্যে ৬২.৭২ মে.টন চাল বিতরন করা হয়েছে। যদিও শ্রীনগর উপজেলায় মোট নিবন্ধিত জেলের সংখ্যা ১৭৪৫ জন।

শ্রীনগর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ইতিমধ্যে পদ্মাবাতি জলমহালের অভায়শ্রমে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে তা মাছের অবাধ বিচরণ ক্ষেত্র হিসাবে তৈরি করা হয়। এর সূফল ওই এলাকার সকল জনগন ভোগ করবে।