যৌতুক না পেয়ে শিশু সন্তান নিয়ে পালাল মাদকসেবী পিতা

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার গোয়ালপাড়া গ্রামের মাদকসেবী এক পিতা যৌতুক না পেয়ে তার দুই বছর এক মাস বয়সী শিশু সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে গেছে। দুগ্ধপোষ্য শিশুকে নিয়ে পিতা পালিয়ে যাওয়ার পাঁচ মাস পেরিয়ে গেলেও তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। মা তার সন্তানের ভবিষ্যৎ চিন্তায় উদ্বিগ্ন হয়ে সন্তানকে উদ্ধারে পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে এখন শয্যাশায়ী হয়ে পড়েছেন।

সন্তান নিয়ে যাওয়া পরিবার, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের লক্ষ্মীবিলাশ গ্রামের জগদীশ বৈদ্যের মেয়ে মন্টি রানী বৈদ্যের সঙ্গে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার গোয়ালপাড়া গ্রামের মাধাব মণ্ডলের ছেলে মিঠুন মণ্ডলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে মিঠুন মণ্ডল যৌতুকের জন্য স্ত্রী মন্টি বৈদ্যকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত। পাঁচ মাস আগে স্বামীর নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে মুন্সীগঞ্জ বিজ্ঞ অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মন্টি রানী বৈদ্য যৌতুক নিরোধ আইনে স্বামী ৪ জনের নামে মামলা করেন। এরই মধ্যে মিঠুন আবারও স্ত্রীর ওপর নির্যাতন-যৌতুক দাবি শুরু করে এবং বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে মন্টিকে মারধর শুরু করে।

মন্টি বৈদ্য এ ব্যাপারে অপারগতা প্রকাশ করলে ১৫ মার্চ বিকালে মারধর করে সন্তানকে রেখে এক কাপড়ে ঘর থেকে বের করে দেয়। একদিন পর মিঠুন তার ছেলে নিঝুম মণ্ডলকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে সন্তান হারানো মা মন্টি রানী বৈদ্য বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ বিজ্ঞ অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। মন্টি রানী বৈদ্য জানান, তার সন্দেহ মাদকের টাকা জোগাড় করতে স্বামী তার সন্তানকে বিক্রি করে দিয়েছেন। মিঠুনের মেসু মশাই গৌতম মণ্ডল (মুহুরী) তার ভাগ্নে মিঠুন মণ্ডল তার শিশু সন্তান নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে জানান, সে একজন মাদকসেবী।

যুগান্তর