লৌহজংয়ে স্কুলপড়ুয়া দুর্গার বিয়ে ঠেকাল সহপাঠীরা

পরিবার থেকে বিয়ে দেওয়া হচ্ছিল স্কুলছাত্রী দুর্গা রাজবংশীকে। গতকাল বুধবার রাতে ছিল আনুষ্ঠানিকতা। এর আগেই সহপাঠীসহ শিক্ষকরা মেয়েটির বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়। খবর পেয়ে পুলিশও সেখানে যায়। বন্ধ হয়ে যায় বিয়েটি। ঘটনাটি লৌহজং উপজেলার লৌহজং-তেউটিয়া ইউনিয়নের বড় নওপাড়া গ্রামের।

দুর্গা একই গ্রামের রামপ্রসাদ রাজবংশীর মেয়ে। সে উত্তর দিঘলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে।

প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক মৃধা জানান, বিয়ের খবর পেয়ে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী, ১২ জন শিক্ষক এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা গতকাল দুর্গার বাড়িতে যান। তাঁরা বিয়েটি বন্ধ করতে বলেন। অন্যদিকে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম মোল্লার মাধ্যমে বাল্যবিয়ের খবরটি পৌঁছে যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মনির হোসেনের কাছে। ইউএনও বিয়েটি বন্ধ করতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠান। লৌহজং থানার ওসি মো. আনিচুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘ইউএনওর মাধ্যমে খবর পেয়ে ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে বাল্যবিয়েটি বন্ধ করে দিই। ’

কালের কন্ঠ