লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ীতে সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দি

কয়েক দিনের অবিরাম বৃষ্টিতে পদ্মার পানি প্রতিদিনই বাড়ছে। এতে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ী উপজেলার নদী তীরবর্তী গ্রামগুলোর সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসব পরিবারের শত শত নারী-পুরুষ ও শিশু আশ্রয়হীন অবস্থায় কষ্টে দিনাতিপাত করছে। এদিকে পানিবন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে দ্রুত পানি নিষ্কাশনে মাওয়া-ভাগ্যকুল সড়কের কান্দিপাড়া এলাকায় সড়ক কেটে স্থানীয় গ্রামবাসী সরু চ্যানেল তৈরি করেছে। প্রতিদিনই মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের ভাগ্যকুল ও লৌহজংয়ের মাওয়া পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত পদ্মার পানি বিপদসীমার নিচে থাকলেও ৫ দশমিক ৬৫ সেন্টিমিটারে প্রবাহিত হচ্ছে বলে পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানিয়েছে।

লৌহজং উপজেলার মেদেনীমণ্ডল ইউনিয়নের মাওয়া, কান্দিপাড়া ও যশলদিয়া গ্রামের পদ্মা নদী তীরবর্তী তিন থেকে চারটি গ্রামের ৫ শতাধিক পরিবারসহ ব্রাহ্মণগাঁও, সন্দিসা, খিদিরপাড়া, গাঁওদিয়া, বেজগাঁও, পয়সা, মাইজগাঁওয়ের শত শত পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। একই অবস্থা বিরাজ করছে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাঁচগাঁও, হাসাইল-বানারী, কামারখাড়া ও দীঘিরপাড় ইউনিয়নের পদ্মা নদী তীরবর্তী গ্রামগুলোতে। এসব গ্রামেরও কয়েক শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। নৌকা ও কলাগাছ দিয়ে তৈরি ভেলা এখন তাদের চলাচলের একমাত্র ভরসা। লৌহজংয়ের ইউএনও মো. মনির হোসেন জানান, অব্যাহত বৃষ্টিতে উপজেলার একাধিক স্থান জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে পানিবন্দি পরিবারের সংখ্যার তালিকা তৈরির কাজ চলছে।

সমকাল