দেশবাসীর কাছে দোয়া চাইলেন বাবা-মা: প্রশংসায় ভাসছে পারভেজ

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ছেলে পারভেজ। বর্তমানে কুমিল্লার দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত আছেন। গত শুক্রবার জীবনবাজি রেখে পচা পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে ২৫ বাসযাত্রীর জীবন বাঁচিয়েছেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ খবর ছড়িয়ে পড়ায় এখন তিনি গণমানুষের নায়কে পরিণত হয়েছেন। তার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ ,এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে গণসংবর্ধনা দেবার তোরজোড় চলছে। এদিকে তার কাজে খুশি বাবা-মা,সারাজীবনে যেন পারভেজ এভাবে জনগণের সেবা করতে পারে সেজন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া ছেয়েছেন তারা।

পারভেজ জানায়. গত শুক্রবার সকালে গৌরীপুর বাস স্ট্যান্ড এলাকায় পেশাগত দায়িত্ব পালন করছিলেন। এসময় ঢাকা থেকে চাঁদপুরের মতলবগামী মতলব এক্সপ্রেসের একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের ডোবায় পড়ে যায়। এসময় বাসে এক শিশুসহ আনুমানিক ২৫জন যাত্রী ছিল। রাস্তার পাশে দাড়িয়ে অনেকে যখন ডুবায় বাসটি তলিয়ে যাবার দৃশ্য দেখছিলেন তখন নিজের জীবন বাজি রেখে ডোবায় ঝাঁপিয়ে পড়েন কনস্টেবল পারভেজ। বাসের জানলার কাচ ভেঙ্গে, দরজা খুলে দেন যাতে বাকী যাত্রীরা বের হতে পারেন, পরে এক শিশুকে উদ্ধার করেন। সেই ভাঙ্গা জানালা দিয়েই এলাকাবাসীর সহযোগিতায় উদ্ধার করা হয় বাকী ২৪ যাত্রীকে। কেন এমন করে ডুবায় ঝাঁপিয়ে পড়লেন এমন প্রশ্নের জবাবে পারভেজ জানান, চোখের সামনে এতোগুলো মানুষকে মরতে দেখতে পারতাম না তাই পঁচা পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ি।

পারভেজ যা করেছে তা অসমান্য। তার কাজে পুলিশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে বলে জানিয়েছেন দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ।

এদিকে তার কাজের জন্য পারভেজকে অভিনন্দন জানিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে দশ হাজার টাকা আর্থিক পুরস্কার দিয়েছেন হাইওয়ে কুমিল্লা রিজিয়নের পুলিশ সুপার পরিতোষ ঘোষ তিনি জানান, হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি তার জন্য ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছেন। যাত্রীদের জীবন বাঁচাতে আমাদের পারভেজ ঝুঁকি নিয়ে যা করেছে তা হাইওয়ে পুলিশ বিভাগের জন্য সত্যই প্রশংসনীয়। পুরস্কার দিয়ে কাজের মূল্যায়ন করা সম্ভব নয়। তবুও এ কাজের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি যাতে তিনি রাষ্ট্রীয়ভাবে পান এ ব্যাপারে সুপারিশ করা হবে।

এদিকে পারভেজের সাফল্যের খবরে আনন্দের বন্যা বইছে তার গ্রামে বাড়ী মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী গ্রামে। বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাসেম বলেন, তার ছেলে এলাকাবাসীর কাছে তার মুখ উজ্জল করেছেন আর সারাজীবনে যেন পারভেজ এভাবে জনগণের সেবা করতে পারে সেজন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া ছেয়েছেন তার মা।

তার কাজের জন্য তাকে প্রশংসায় ভাসাচ্ছে এলাকাবাসী। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে গনসংবর্ধনা দেবার তোরজোড় ও চলছে।

বিডিলাইভ