শ্রীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এবং কলেজে বিজ্ঞানমেলা

“বিজ্ঞান হোক আনন্দের উৎস” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে শনিবার মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় হয়ে গেলো ‘বিজ্ঞানযাত্রা’ সংগঠনের প্রথম বিজ্ঞানমেলা। শ্রীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এবং কলেজে আয়োজিত দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন একই কলেজের অধ্যক্ষ জনাব মো. আবুল হোসেন। তিনি বক্তৃতায় বাংলাদেশের মফস্বল অঞ্চলে প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান এবং এতে বিজ্ঞানের ছাত্রছাত্রীদের পরিস্থিতি তুলে ধরেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন কলেজটির প্রাক্তন ছাত্র এবং সমাজকর্মী স্বপন কুমার মোদক। সভাপতির বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞানযাত্রার প্রতিষ্ঠাতা ফরহাদ হোসেন মাসুম। তার আলোচনায় উঠে এসেছে বিজ্ঞানের সাম্প্রতিক বিষয়সহ বাংলাদেশে বিজ্ঞানচর্চার অতীত-ভবিষ্যত পর্যালোচনা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর বিষয়ভিত্তিক উপস্থাপনা দিয়ে আয়োজনের মূল পর্ব শুরু হয়। ১৬টি বিষয়ভিত্তিক উপস্থাপনার চারটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের কথা মাথায় রেখে করা হয় । মধ্যাহ্ন বিরতির পর শুরু হয় পোস্টার পর্ব। ১২টি পোস্টারের মধ্যে ৬টি বিশেষত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য বানানো, বাকিগুলো হাই স্কুল এবং কলেজের ছাত্রছাত্রীদের জন্য। বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি (বাবিজস) এবং বিজ্ঞানযাত্রা সংগঠন বেশকিছু পর্যবেক্ষণধর্মী নিরীক্ষা করে দেখিয়েছে উৎসুক ছাত্রছাত্রীদের। তার মধ্যে বাবিজস-এর “আলোর ঝিলিক” বিষয়ক নিরীক্ষাগুলো বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ- বিজ্ঞানভিত্তিক ভিডিও প্রদর্শন। যেমন খুশি প্রশ্ন করো- পর্বে যে কোনো প্রশ্নকারীর হাতে তুলে দেয়া হয় বিশেষ পুরস্কার, এই মেলার জন্য বিশেষভাবে বানানো বিজ্ঞানযাত্রার লগো এবং ওয়েব ঠিকানা (www.bigganjatra.org) সংবলিত কলম। র‌্যাফেল ড্র-এর পাশাপাশি সারাদিনের উপস্থাপিত বিষয়গুলোর ওপর প্রশ্নোত্তর পর্বে বিজয়ীদের হাতে তুলে দেয়া হয় বিশেষ পুরস্কার। অনুষ্ঠানের সমাপনী পর্বে “বিজ্ঞান কীভাবে কাজ করে” শীর্ষক পোস্টারটি স্কুলের গবেষণাগারের জন্য তুলে দেয়া হয় শিক্ষক প্রদীপ কুমার সাহার হাতে।

ইত্তেফাক