শবেবরাত সামনে রেখে নতুন ফকিরের ভিড় বাড়ছে

তামান্না মোমিন খান: রাজধানীর অলিগলি ও ফুটপাথে গত কয়েক দিন ধরেই দেখা যাচ্ছে নতুন নতুন ভিক্ষুক। শবেবরাত ও রমজানকে টার্গেট করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে রাজধানীতে আসতে শুরু করেছে এসব ভিক্ষুক। মৌসুমী ভিক্ষুক নামে খ্যাত এরা সারা বছর ভিক্ষা না করলেও শবেবরাতের আগে এসে ঈদ পর্যন্ত থেকে যায় রাজধানীতে। এসময় ভিক্ষা ভালো পাওয়া যায় বলে জানায় ভিক্ষুকরা। শবেবরাতের রাতে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা রাতভর মসজিদে ইবাদত করে।

আবার এদিনে অনেকেই আপনজনের কবর জিয়ারত করতে যায় গোরস্থানে। তাই মসজিদ আর গোরস্থানের সামনেই বেশি ভিড় করে তারা। দুই দিন আগে ময়মনসিংহ থেকে ঢাকায় এসেছেন সাত্তার। বয়স ৫০। তিনি একা আসেননি, সঙ্গে এসেছেন স্ত্রীকে। ফার্মগেট ফুটওভার ব্রিজের এপারে বসে ভিক্ষা করছেন সাত্তার আর ব্রিজের ওপারে তার স্ত্রী জুলেখা। আব্বাস বলেন, দুইদিন ধইরা ঢাকায় আসছি। বাড়ি যাবো একেবারে চানরাতে। প্রতি বছর শবেবরাতের আগে আসি। আর বাকি সময়টায় বাড়িতে কাম করি। রমজান মাসে দেশে কাম থাকে না। আর এই সময়টায় ঢাকায় ভালো ভিক্ষা পাওয়া যায়। শবেবরাতের রাতে আমি বসুম বায়তুশ শরীফ মসজিদের সামনে আর স্ত্রী বসবো কুতুববাগ দরগার সামনে।

এই দিন মানুষ রাতভর মসজিদে থাইকা মন নরম থাকে তখন হাত পাতলেই টাকা দেয়। অনেকে আবার মসজিদে আইনা হালুয়া-রুটি দেয়। পাঁচ বছরের কমল খালি গায়ে ভিক্ষা করছে মানিক মিয়া এভিনিউর রাস্তায়। বাড়ি ফরিদপুর। কার সঙ্গে ঢাকায় এসেছো প্রশ্ন করলে কমল জানায়, একটা ব্যাটার সঙ্গে। ব্যাটায় কইছে ঈদে নতুন জামা-কাপড় কিনা দিবো। কমলের হাতের মুঠোয় কতগুলো ভিক্ষার টাকা। এখানে কত টাকা আছে জানতে চাইলে সে বলে জানি না। আমি টাকা গুনতে জানি না। সব টাকা নিয়া ব্যাটারে দিমু। এদিকে রমজানকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ফকির সংগ্রহ শুরু করেছে সর্দাররা।

মেরিনা মুন্সীগঞ্জ থেকে ভিক্ষা করতে এসেছে ঢাকায়। ছোট বেলায় একটি হাত আগুনে পুড়ে গেছে তার। পোড়া হাত দেখিয়ে ভালোই আয়-রোজগার হয় তার। শবেবরাতের রাতে বনানী গোরস্থানে সামনে বসে সে। মেরিনা জানায়, শুধু শবেবরাত থেকে রমজান মাসেই ভিক্ষা করতে ঢাকায় আসে। বাকি সময়টা বাড়িতেই থাকে। তবে ঢাকায় নতুন ভিক্ষুকদের নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। কারণ নতুন ভিক্ষুকদের ঈর্ষা করে পুরান ভিক্ষুকরা। মেরিনা জানায়, যারা অনেকদিন থেকে ঢাকায় ভিক্ষা করে তারা নতুন ফকিরদের জায়গা দিতে চায় না। বসতে গেলে দূর দূর করে। মেরিনার পোড়া হাত দেখে মানুষ মায়া করে বেশি ভিক্ষা দেয়। এটি সহ্য করতে পারে না পুরান ভিক্ষুকরা। একারণে সে বেশিদিন এক জায়গায় বসতে পারে না।

এদিকে শেরপুর থেকে ভিক্ষা করতে এসেছে ষাট বছরের জোহরা। তার একটা পা চিকন হয়ে গেছে। একা চলতে পারে না। তার এক এলাকার ভাই তাকে ঢাকায় নিয়ে এসেছে। রাজধানীর কাওরান বাজার মসজিদের সামনে ভিক্ষা করে। জোহরা বলেন, শবেবরাতের দিন থেকে পুরা রমজান মাসে প্রতিদিন দু’শ থেকে তিন শ’ টাকা ভিক্ষা পায়। রমজান মাসে মানুষ যত ভিক্ষা দেয় বাকি সময় মানুষ এত ভিক্ষা দেয় না। একারণে শুধুমাত্র রমজান মাসেই ঢাকায় ভিক্ষা করতে আসে। রমজানের পরে আবার বাড়ি ফিরে যাবে জোহরা।

মানবজমিন