বাঁচানো গেল না দুর্বৃত্তের আগুনে দগ্ধ সোনিয়াকে

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় দুর্বৃত্তদের আগুনে দগ্ধ হওয়া কলেজছাত্রী সোনিয়া আক্তার (১৯) মারা গেছেন। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে তার মৃত্যু হয়। সোনিয়া গজারিয়ার ডা. আবদুল গাফ্ফার স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এবার পরীক্ষা দিচ্ছিলেন।

গতকাল শুক্রবার সোনিয়ার লাশ গজারিয়ার বালুয়াকান্দি গ্রামের বাড়িতে নেওয়ার পর এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। শত শত নারী-পুরুষ তাকে

শেষবারের মতো দেখতে ভিড় জমান। পরে স্থানীয় সামাজিক কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।

এদিকে সোনিয়ার মৃত্যুর ঘটনার জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আজ সকালে তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন করবেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। সোনিয়ার মা হাজেরা বেগম জানান, গত সোমবার সকালে বাড়ির পাশে কাজ করছিল তার মেয়ে। এ সময় কে বা কারা দাহ্য পদার্থ ছুড়ে তার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে সোনিয়ার শরীরের ৮০ ভাগ পুড়ে যায়। পরে তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ডা. আবদুল গাফ্ফার স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক এ আর রাসেল জানান, সোনিয়া এইচএসসির পাঁচটি বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ নেন। আজ তার পরবর্তী পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল; কিন্তু আগেই তাকে পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হলো।

গজারিয়া থানার ওসি মো. হেদায়েতুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, এ ঘটনায় অজ্ঞাত এক যুবককে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। তাকে শনাক্ত ও গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম অভিযান অব্যাহত রেখেছে। পুলিশ ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখছে।

সমকাল

Comments are closed.