টঙ্গীবাড়ীতে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ, ধর্ষক ও তার মামা গ্রেফতার

জেলার টঙ্গীবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও জোর করে গর্ভপাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ধর্ষক ও তার মামাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ধর্ষিতা বাদী হয়ে টঙ্গীবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ মামা-ভাগ্নেকে গ্রেফতার করে।

এদিকে, ধর্ষক অনিক ভুইয়া ও তার মামা শাহজাহানকে মুন্সীগঞ্জ আমলী আদালত-৪ এর বিচারক শহিদুল হক চৌধুরী তাদের জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন।

জানাগেছে, মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ওয়াহেদ আলী দেওয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী দশত্তর গ্রামের। ওই ধর্ষিতার সাথে পাশের বাইনকাইচ গ্রামের মৃত মজিবুর ভূইয়ার ছেলে অনিক ভূইয়া দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিলো। ওই সম্পর্কের জের ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অনিক ভূইয়া কয়েক মাস ধরে অবৈধ মেলামেশা করে আসছে।

এরই মধ্যে ধর্ষিতা গর্ভবতী হয়ে উঠলে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে এনে গর্ভপাত ঘটায়। গর্ভপাত ঘটানোর পরে সচুতুর শাহজাহান শেখ তার ভাইগ্না সাথে ধর্ষিতার কোনো অবৈধ সম্পর্ক ছিলো না এবং সে গর্ভপাত ঘটায়নি বলে অস্বীকার করে ধর্ষিতাকে ভাইগ্না বৌ হিসাবে গ্রহণ করতে অস্বীকার করে।

এতে ওই এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পিতা-মাতাহীন ধর্ষিতাকে টঙ্গীবাড়ী থানায় নিয়ে এসে ধর্ষক ও তার মামা এবং ধর্ষকের মা শিল্পী বেগমের বিরুদ্ধে টঙ্গীবাড়ী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ ধর্ষক ও তার মামাকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করলে আদালত তাদের জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়।

পূর্ব পশ্চিম

Comments are closed.