নিষেধাজ্ঞার পরও ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে আসামি এজলাসে

ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে কোনো আসামিকে আদালতের এজলাসে হাজির করা যাবে না মর্মে হাইকোর্টে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। রবিবার হত্যা মামলার একজন আসামিকে ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়েই ঢাকার ২ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।

জানা যায়, ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে আনা ওই আসামির নাম ইব্রাহিম খান তুষার। খিলগাঁও থানার ৬(২)০৯ নম্বর মামলার আসামি তিনি। এ মামলাটি বর্তমানে ঢাকার ২ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাবইব্যুনালে বিশেষ দায়রা ২৪৭/২০১৬ নম্বর মামলা হিসেবে বিচারাধীন আছে। রবিবার সকালে তাকে মুন্সীগঞ্জ কারাগার থেকে ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে ঢাকার ওই আদালতে পাঠানো হয়। পরে তাকে ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়েই এজলাসে উঠানো হয়।

এই সম্পর্কে ওই ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পিপি সৈয়দ শামসুল হক বাদল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়েই এজলাসে উঠানো হয়েছিল। হাজতি আসামিকে কিভাবে এজলাসে আনবে এ দায়িত্ব হাজতখানা পুলিশের। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো দায় দায়িত্ব নেই।

তবে এ ব্যাপারে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের হাজতখানার দায়িত্বে থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এ পুলিশ কর্মকর্তা ঢাকাটাইমসকে বলেন, উচ্চ আদালতের কোনো আদেশ আমরা এখনো পাইনি। এছাড়া কারাগার থেকে যে আসামি ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে আনা হয় সেভাবেই আমরা আসামিকে এজলাসে পাঠাই।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ মার্চ বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ হাজির হন ডিআইজি প্রিজন তৌহিদুল ইসলামের উপস্থিতিতে ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে কোনো আসামিকে আদালতের এজলাসে হাজির করা যাবে না মর্মে আদেশ দেন।

দীর্ঘদিন কারাগারে থাকা চারজন আসামিকে গত ৭ মার্চ ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে হাইকোর্টে হাজির করায় গত ১৩ মার্চ এ আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

ঢাকাটাইমস

Comments are closed.