সিরাজদিখানে মাকে আটকে রেখে মেয়েকে ধর্ষণ করলো ইউ পি সদস্য

মোঃ রুবেল ইসলাম.তাহমিদ: সিরাজদিখান ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার বালুরচর ইউনিয়ন ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য কামাল মোল্লা রোববার সন্ধ্যায় মোল্লা কান্দি বাজারের কাছে তার নিজ বাড়ীতে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। তার সহযোগি পান্না আক্তার (২৮) কে আটক করেছে সিরাজদিখান থানা পুলিশ।

এলাকাবাসি ও থানা সুত্রে জানা যায়, ভি জি এফ এর কার্ডে দেওয়ার কথা জানালে মেয়েটির মা নার্র্গিস বেগম তার ৬ষ্ট শ্রেণীতে পড়–য়া মেয়েকে নিয়ে ইউপ সদস্য কামাল মোল্লার বাড়ীতে গেলে নার্গিস বেগমকে অন্যা রুমে আটক করে বাহির তালা দিয়ে দেয় পান্না আক্তার।

মেয়েটিকে ঘরে আটকিয়ে রেখে নেশাজাত দ্রব্য খাইয়ে দুই ঘন্টা ব্যাপী ধর্ষন করা হয়। পান্না আক্তার ঐ ইউপি সদস্যো বাড়ীতে ভাড়া থাকে। সে বালুরচর কিউর লাইফ ডায়াগনিস্টক সেন্টারে চাকুরী করে তার স্বামীর নাম সোলেমান। চিকিৎসার জন্য মেয়েটিকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি জানাজানি হলে ইউপি সদস্য পালিয়ে যায়।

ধর্ষিতাদের বাড়ী টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর থানায় বাবা সানোয়ার হোসেন সিরাদিখানে কাজ করে এবং মোল্লা কান্দি সুলতান আহম্মেদের বাড়ীতে ভাড়া থাকেন। বিষয়টির সত্যতা স্বিকার করে জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম জানান, আসামীকে গ্রেফতারের জন্য ইতোমধ্যে একাধিক টিম কাজ করছে।

Comments are closed.