কৃষকের আলু এখন পানির নিচে!

টানা ৪ দিনের বৃষ্টিতে পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পরেছে মুন্সীগঞ্জের নিমাঞ্চলের আলুর জমি গুলো। ইতোমধ্যে জেলার ৯ হাজার ২শত ৫০ হেক্টর জমির আলু জমি থেকে উঠানো হলেও বাকি ৩০ হাজার ৫০ হেক্টর জমির আলুর বেশির ভাগই রয়েছে ঝুঁকিতে। বৃষ্টির পানি জমি থেকে সরাতে চাষিরা মরিয়া হয়ে পরেছে। বিগত কয়েক বছরযাবত আলুর লাগাতার লোকসানে ব্যাপক ক্ষতির মুখে রয়েছে কৃষকরা।

শুধুমাত্র বিগত সময়ের লোকসান পোযানোর আশায় প্রতি বছর আলু চাষ করে যাচ্ছে তারা। এ বছর সার,বীজ ও কীটনাশকের সমস্যা কাটিয়ে ফলন ভাল হওয়ার আশা করছিলেন তারা। কিন্তু আলু তোলা শুরু হলে কৃষকের মাথায় ভাজ পরে চিন্তার। কারন গাছ বালো হলেও আবাদ ভালো নেই। সেই সঙ্গে যোগ হয়েছে আলু দাম কমের শঙ্কা। যথা সময়ে বৃষ্টি না হওয়া আলুর ফলন কম হয়েছে কিন্তু আলু উৎলনের এ অসময়ে বৃষ্টিই বর্তমানে কৃষকের সবচেয়ে বড় ফাদে পরিনিত হয়েছে।

কৃষকরা আরো জানান, আর্থিক ঋন নিয়ে চাষাবাদ করে তারা পরেছে পুরোটা বিপাকে, সরকারী সাহায়্য ছাড়া তাদের আর কোন গতি নেই বলেও তারা জানান। জেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, বৃষ্টির পরিধি দীর্ঘ হলে জমির আলু বাঁচানো অসম্ভব হয়ে পরবে।

মুন্সীগঞ্জে মোট ৩৯ হাজার ৩শত হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ৯ হাজার ২শত ৫০ হেক্টর জমির আলু উৎলন করা হয়েছে আরো ৩০ হাজার ৫০ হেক্টর জমির আলু উৎলন বাকি রয়েছে। তবে মোট ৯০ হেক্টর জমি দূযোগে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিডিলাইভ

Comments are closed.