আদর্শ আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ ও গভর্ণিং বডির অপসারণে কারণ দর্শানোর নোটিশ

অবশেষে মুন্সীগঞ্জ আদর্শ আলিম মাদরাসার সভাপতি পদ বাতিলসহ গভার্ণিং বডির কমিটি কেন ভেঙ্গে দেয়া হবে না তার কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা। নোটিশে আগামী ৩০ দিনের মধ্যে গভার্ণিং বডির সভাপতি, সদস্যবৃন্দ ও অধ্যক্ষকে জবাব দাখিলের জন্য বলা হয়েছে। এ নোটিশের খবরে মাদরাসার শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইছে। অনেকেই স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা স্মারক নং ০৫.৩০.৫;০০.২১১.০৬.০২২.১৬-২১(সং) তারিখ: ১৫/০১/২০১৭ এর নোটিশে বলা হয়েছে- নির্দেশক্রমে জানানো যে, মুন্সীগঞ্জ জেলার সদর উপজেলাধীন মুন্সীগঞ্জ আদর্শ আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ (বরখাস্তকৃত) মোঃ মাহবুবুর রহমান এবং সভাপতির বিরুদ্ধে উক্ত মাদরাসার টিচার ইনচার্জ মাওলানা মোনায়েম খাঁন একখানা অভিযোগ বোর্ডে দাখিল করেন। অভিযোগপত্রে মোঃ মাহবুবুর রহমান, অধ্যক্ষ (বরখাস্তকৃত) এবং সভাপতির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতি, অনৈতিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকা, অবৈধভাবে গভার্ণিং বডি গঠনসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে উল্লেখ করা হয়।

নোটিশে আরও বলা হয়েছে, অভিযোগের বিষয়ে সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক মতামতসহ একটি প্রতিবেদন প্রেরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সূত্রে উল্লেখিত স্মারক নং বামাশিবো/প্রশা/মুন্সীগঞ্জ-৩২/১৪৯৯/৪; তারিখঃ ২৭/১০/২০১৬ খ্রিঃ জেলা প্রশাসক, মুন্সীগঞ্জ-কে পত্র দেয়া হয়। পত্রের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক, মুন্সীগঞ্জ সূত্রোক্ত ১নং স্মারকে একটি প্রতিবেদন বোর্ডে প্রেরণ করেছেন। তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, অধ্যক্ষ (বরখাস্তকৃত) মোঃ মাহবুবুর রহমান এবং সভাপতির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগসমূহ সঠিক মর্মে প্রমাণিত হয়েছে। এছাড়া তদন্তকারী কর্মকর্তা বিদ্যমান গভার্ণিং বডি ভেঙ্গে দেয়ার বিষয়ে সুপারিশ করেছেন।

বর্ণিত অবস্থায় তদন্ত প্রতিবেদন সুপারিশের আলোকে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা ( গভাণিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি) প্রবিধানমালা-২০০৯ এর প্রবিধান-৩৮(১) এর ক্ষমতাবলে এ দপ্তর হতে নং-বামাশিবো/প্রশা/২৩২/৪/মুন্সীগঞ্জ-৩২; তারিখঃ ০৭/০৩/২০১৬ খ্রি: স্মারকে অনুমোদিত গভার্ণিং বডির সভাপতি পদ বাতিলসহ পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন ভেঙ্গে দেয়া হবে না আগামী ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ আদর্শ মাদরাসা,সদর, মুন্সীগঞ্জ এর গভার্ণিং বডির সভাপতি/সদস্যবৃন্দ ও অধ্যক্ষকে সন্তোষজনক জবাব বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা রেজিস্ট্রার প্রফেসর মোঃ মজিবুর রহমানের নিকট প্রেরণ করতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় কার্যার্থে অনুলিপি প্রদান করা হয়েছে জেলা প্রশাসক, মুন্সীগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ সদর নির্বাহী অফিসার, জেলা শিক্ষা অফিসার, সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারগণসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

এদিকে, নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে জেলা প্রশাসকের নির্দেশ অগ্রাহ্য করে গোপনে মুন্সীগঞ্জ আদর্শ আলিম মাদরাসার গভর্ণিং বডির সভাপতি এ.বি.এম. ফজলুল করিমের নির্দেশে ২০১৬ সালের ২২ আগস্ট বরখাস্তকৃত অধ্যক্ষ মোঃ মাহবুবুর রহমানকে ৩০/১০/২০১৬ তারিখে পুর্ণবহাল করে বকেয়া বেতনভাতাসহ চলতি বেতন ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে অনেকে প্রতিবাদ করলেও তাদের কোনো কথা আমলে নেয়নি স্কুল ম্যানেজিং কমিটি। বরং অভিযোগকারী টিচার ইনচার্জ মোঃ মোনায়েম খান, সহকারী শিক্ষক (কম্পিউটার) আব্দুস সালাম, জুনিয়র শিক্ষক আলমগীর হোসেন ও সহকারী মৌলভী শাহাবুদ্দিনকে গত ১৫/১০/২০১৬ শোকজ করে গভর্ণিং বডির সভাপতি এ.বি.এম.ফজলুল করিম। এছাড়াও তাদেরকে এ বিষয়ে কোনো কথা না বলার জন্য হুঁশিয়ার করে দেয়া হয়।

অধ্যক্ষ (বরখাস্তকৃত) মোঃ মাহবুবুর রহমান এ ব্যাপারে জানান, আমাকে মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে অস্থায়ীভাবে বরখাস্ত করেছিলো গভর্ণিং বডি। পরে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় আমার চাকুরী পুর্ণবহাল করা হয়েছে। বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা থেকে প্রেরিত কারণ দর্শানো নোটিশের ব্যাপারে তিনি জানান, এটা আমাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়। জবাবের পরে আপনারা জানতে পারবেন।

এ বিষয়ে গভর্ণিং বডির সভাপতি এ.বি.এম ফজলুল করিম জানান, অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে পুর্ণবহাল করা হয়েছে। তাছাড়া বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা থেকে প্রেরিত কারণ দর্শানোর নোটিশের বিষয়ে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আমরা জবাব দিবো।

উল্লেখ্য, গভর্ণিং বডির সভাপতি এ.বি.এম. ফজলুল করিম দীর্ঘ এক যুগেরও বেশী সময় ধরে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, মুন্সীগঞ্জ জেলার আমীর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। অধ্যক্ষ (বরখাস্তকৃত) মোঃ মাহবুবুর রহমান বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, মুন্সীগঞ্জ সদর এর আমীর হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের দু’জনের বিরুদ্ধেই নাশকতার কয়েকটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এসব মামলায় তারা জেলও খেটেছেন। অভিযোগ রয়েছে, মুন্সীগঞ্জ আদর্শ মাদরাসায় পড়াশোনার আড়ালে তারা জামায়াতে ইসলামীর গোপন সব কর্মকান্ডে নিয়োজিত ছিলেন।

সাধারণ শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকরা এ ব্যাপারে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বহুবার অবগত করেছেন। আন্দোলন সংগ্রাম করেছে। মানব বন্ধন, জেলা প্রশাসকের বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করা হয়েছে। তারপরও তাদের অপকর্ম থেমে নেই। অধ্যক্ষকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত ও গভর্ণিং বডি ভেঙ্গে দেয়া হলেই মুন্সীগঞ্জের দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি সুন্দরভাবে চলবে।

ক্রাইম ভিশন

Comments are closed.