রাজধানীতে কলেজ ছাত্রীসহ দু’জনের মরদেহ উদ্ধার

রাজধানীর মিরপুর ও খিলগাঁও এলাকা থেকে এক কলেজ ছাত্রীসহ দু’জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ দু’টি ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, পশ্চিম শ্যাওড়াপাড়ার একটি বাসা থেকে ইসতেফা জান্নাত রাখি (২১) নামের এক কলেজ ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে মিরপুর থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (০২ মার্চ) দিনগত রাত সোয়া ১টার দিকে রাখির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শুক্রবার (০৩ মার্চ) সকালে ঢামেক হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

নিহত রাখি পটুয়াখালী জেলার মির্জাগঞ্জ উপজেলার রামপুর গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালক কবির হোসেনের মেয়ে।

রাখির বাবা কবির হোসেন জানান, তারা পশ্চিম শ্যাওড়াপাড়ার ৫৩ নং বাসায় ভাড়া থাকেন। রাখি মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলো।

তিনদিন আগে রাখির মা তার ছোট মেয়ে মিমকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যায়। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে রাখিকে বাসায় রেখে অটোরিকশা নিয়ে বের হই। রাত সোয়া ১১টার দিকে বাসায় এসে দেখে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ।

অনেক ডাকাডাকির পর কোনো সাড়া না পেয়ে প্রতিবেশীদের সহায়তায় দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দেখি ফ্যানের সঙ্গে রাখির মরদেহ ঝুলছে।

তাবে আত্মহত্যার কারণ জানাতে পারেনি তার পরিবার।

মিরপুর থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) নাসির উদ্দিন জানান, পরিবারের মাধ্যমে খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে খিলগাঁও গোলার বাড়ি এলাকার একটি বাসা থেকে ফাতেমা আক্তার (২২) নামের এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে খিলগাঁও থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ১০টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ রাতে ঢামেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

মৃত ফাতেমা মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার হোসেনদী গ্রামের বাসিন্দা।

খিলগাঁও থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) ফারুক হোসেন জানান, স্বামী জনি মিয়াকে নিয়ে খিলগাঁও গোলার বাড়ির একটি বাসায় ভাড়া থাকতো ফাতেমা।

পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Comments are closed.