মিরকাদিম পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী মনিরুজ্জামান শরিফ

মোহাম্মদ সেলিম: মুন্সিগঞ্জ জেলা আ’লীগের সর্বশেষ সভা হয়েছে লৌহজং উপজেলায়। সেখানে মিরকাদিম পৌর আ’লীগের কমিটি গঠন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয় বলে খবর শোনা যাচ্ছে। সেই সভায় এখানে কমিটি গঠন নিয়ে দুই মাসের সময় বেধে দেয়া হয়। প্রথম এক মাসের মধ্যে ৯টি ওয়ার্ডে ওয়ার্ড কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি।

আর পরের মাসের মধ্যে মিরকাদিম পৌর আ’লীগের পূণাঙ্গা কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে দলের একটি পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। তার ধারাবাহিকতায় এখানে কমিটি গঠন নিয়ে জোর তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

এবারের পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রার্থী হচ্ছেন মনিরুজ্জামান শরিফ। তাকে ঘিরে এখানকার রাজনীতি বর্তমানে ঘুরপাক খাচ্ছে। ইতোপূর্বেও তিনি এই পদে প্রার্থী হিসেবে লড়াইয়ের ময়দানে ছিলেন। কিন্তু সেই পরিস্থিতিতে তখন তিনি আলোর মুখ দেখেননি। তবে এবারের রাজনীতিতে পরিস্থিতি একটু অন্যরকম বলে অনেকেই মনে করছেন।

রাজনীতির আদর্শদিক থেকে তিনি বর্তমানে একজনের অনুগামী। তিনি হচ্ছেন মুন্সিগঞ্জ ৩ আসনের সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস। এই আসনের রাজনীতিতে মৃণাল কান্তি দাসের ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। বর্তমানে মৃণাল কান্তি দাসের অনুগামীরা যে যেখানে দাঁড়াচ্ছে সেখানেই জয় জয়কার হচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারের মিরকাদিম পৌর আ’লীগের কমিটির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী মনিরুজ্জামান শরিফের জয় লাভের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি বলে অনেকেই মনে করছেন।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক পরিমন্ডলে ঘেরা মনিরুজ্জামান শরিফের জীবন। ১৯৮২ সালে ছাত্র রাজনীতিতে যাত্রা শুরু হলেও তাকে আর কখনেই ফিরে দাঁড়াতে হয়নি। হাঁটি হাঁটি পায়ে এখন মুলধারার রাজনীতিতে তিনি পৌঁছে গেছেন। রাজনীতির ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে তিনি তার মেধা ও প্রজ্ঞা দিয়ে এগিয়ে চলেছেন অবিরাম। মাঝে মাঝে হোচট খেয়েছেন। কিন্তু দমে যাননি। তার সেই বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের ধারাবাহিকতার কিছু চিত্র এই প্রজন্মের পাঠকের কাছে তুলে ধরার চেষ্ঠা করছি মাত্র।

মনিরুজ্জামান শরিফ ১৯৮২ রিকাবী বাজার ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। রাজনৈতিক ধারাবাহিকতায় তিনি ১৯৮৬ সালে হরগঙ্গা কলেজ শাখার ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি ছাত্রলীগ মনোনীত একই কলেজ থেকে ১৯৮৭ সালে এজিএস প্রার্থী নির্বাচন করেন।

তারপরে দেশব্যাপি উত্তাল রাজনীতির মধ্যে তিনি ১৯৯১ সালে মুন্সিগঞ্জ সদর থানা ছাত্রলীগ আহ্বায়ক এর দায়িত্ব পালন করেন।
এরপর তিনি ১৯৯২ সালে জেলা ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৯৪ সালে তিনি জেলা যুবলীগ সদস্য গ্রহণ করেন। তারপরে তিনি ১৯৯৫ সালে রিকাবী বাজার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর তিনি ১৯৯৬ সদর থানা আওয়ামী লীগ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই বছরে তিনি বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সভাপতি মিরকাদিম পৌর নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেন। তার পাশাপাশি তিনি স্থানীয় সমাজিক সংগঠন গ্রীন ওয়েল ফেয়ার সেন্টার সাধারণ সম্পাদক, নবোদয় সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদ সাধারণ সম্পাদক, সহ- সভাপতি সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, অভিভাবক প্রতিনিধি বিনোদপুর রামকুমার উচ্চ বিদ্যালয় কার্য়করী সদস্য, নুরপুর মসজিদ ও পঞ্চায়েত কমিটির দায়িত্ব পালন করেন।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Comments are closed.