ফিরিঙ্গিবাজারে বয়লার বিস্ফোরণে ছাত্র নিহত

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা ফিরিঙ্গিবাজারে বয়লার বিস্ফোরণে রাব্বি (১৫) নামে নিহত অস্টম শ্রেণির ছাত্রের দাফন মঙ্গলবার সম্পন্ন হয়েছে। স্থানীয় মসজিদে জানাজা শেষে বাড়ির পাশের গোরস্তানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। দুপুরে রাব্বির ময়না তদন্তের পর তার পরিবারের কাছে লাশ হস্তন্তর করা হয়।

এ ঘটনার পর মিল মালিকের পুত্র ইমরান মিলে তালা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে এলাকা থেকে পালিয়ে গেছে। বিপুল পরিমাণের অর্থের মালিক ইমরান বিষয়টি দামাচাপা দিতে ইতোমধ্যে এলাকায় টাকা ছড়িয়ে দিয়েছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। টাকার কারণে সেখানে ইমরানের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলছে না।

রাব্বির স্বজনরা জানান, বয়লারটি এর আগেও ভেঙ্গে গিয়েছিল। তখন মিল মালিকদের বিষয়টি জানালোও তারা তাদেরকে তেমন একটা পাত্তা দেননি বলে অভিযোগ উঠেছে। টাকার গরমে মিল মালিকরা এখানকার সাধারণ মানুষদের আদতো মানুষই মনে করেন না।

বয়লার থেকে বাস্প দিয়ে ধান সিদ্ধ করা হয়, তার অবকাঠামো মারাতœকভাবেই দুর্বল প্রকৃতির। আর তাতেই গ্যাস দিয়ে এই বয়লার চালনা হতো। এখানে আধুনিক প্রযুক্তির কোন ছোয়া দেখা যায়নি। যার কারণে অতিরিক্ত বাস্পের চাপে বয়লার ফেটে যায়। আর এর ফলে সম্ভবনাময় এক যুবকের অকাল মৃত্যু ঘটে।

তাছাড়া এই মিলের আশপাশে রয়েছে সাধারণ মানুষের বসবাস। তা হলে কিভাবে এই মিলটি পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র পেলো। সাধারণত মানুষের বসতি এলাকায় এ ধরণের ছাড়পত্র পেতে পারে না। এ বিষয়ে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।

ঘটনার সময় রাব্বি নিজ বসতঘরে পড়াশুনা করছিলো। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে ফিরিঙ্গিবাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাব্বি ফিরিঙ্গিবাজারের আবুল কাশেমের ছেলে এবং পঞ্চসার উচ্চ বিদ্যালয়ের অস্টম শ্রেণির ছাত্র।

নিহত স্কুল ছাত্রের বাবা আবুল কাশেম জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ফিরিঙ্গিবাজারের এসাক দেওয়ানের অটোরাইস মিলের বয়লার বিস্ফোরণ হয়। এ সময় বিস্ফোরিত বয়লার ভেদ করে বসত ঘরের চাল ছেদ করে রাব্বির ওপর গিয়ে পড়ে। এতে রাব্বি মারা যায়। এই ধরণের দুর্ঘটনার দায় দায়িত্ব আসলে কার। তার মৃত্যুতে পঞ্চসার ও মিরকাদিম পৌর আ’লীগ এক মিনিটের নিরবতা পালন করে। এই সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পঞ্চসার আ’লীগের সভাপতি আলমগীর খান। তারা সোমবার রাতে ২১ ফেব্রুয়ারিতে শহিদের শ্রদ্ধা জানাতে গেলে রাব্বির স্মরণে এই নিরবতা পালন করে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *