শ্রীনগরে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনা ফাঁস হওয়ায় খুন হন মেরিন খাঁন: গ্রেফতার ৪

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনা ফাঁস হওয়ার মেরিন খাঁন (২৬) নামে এক যুবকে হত্যা করা হয়। মেরিন খান এক র‌্যাব সদস্যের মোটর সাইকেল ছিনতাই মামলার আসামী ছিল। গত ২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা রাতে মামলার অপর আসামীরা প্রতিশোধ নিতে মেরিন খানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। এঘটনায় পুলিশ দুই দফায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। এদের মধ্যে আ: কুদ্দুস ওরফে সজিব নামে একজন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দী দিয়েছে। তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সকালে মুন্সীগঞ্জ আদালত পাড়া থেকে অপর তিনজনকে গ্রেফতার করে শ্রীনগর থানা পুলিশ। এর আগে গত ৯ ফেব্রুয়ারী আঃ কুদ্দুসকে রাঢ়িখাল গ্রামের নিজ বাড়ী থেকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীনগর থানার এসআই নাসির জানান,গত ৫ ফেব্রুয়ারী রাত সাড়ে সাতটার দিকে রাঢ়িখাল এলাকার মৃত তোফাজ্জল খানের পুত্র ও রাঢ়িখাল ইউপি সদস্য আ ঃ আউয়ালের শ্যালক মেরিন খান (২৬) কে মাথায় ও ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে ওই এলাকার কচিঁদের বাগান বাড়ীতে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। মেরিন খানের গোঙ্গানীর শব্দ শুনে পাশ্ববর্তী এক নারীর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে আসলেও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। এঘটনায় মেরিন খানের মা ফিরোজা বেগম অজ্ঞাতদের আসামী করে শ্রীনগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে মেরিন খান র‌্যাব-১১ এর এক সদস্যের মোটরসাইকেল ছিনতাইয় মামলার আসামী।

এঘটনাকে সামনে রেখে পুলিশ রাঢ়িখাল এলাকার মৃত বশিরুল শেখের ছেলে আঃ কুদ্দুস সজিবকে গ্রেফতার করে। সজিব হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীতে সে জানায়, মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের মামলাকে কেন্দ্র করে মেরেিনর সাথে তাদের বিরোধ দেখা দেয়। এর জের ধরে শ্রীনগর কুশড়ী পাড়ার বাইপাস এলাকার আ: মালেক শেখের ছেলে রতন, শেখ জলিলের ছেলে সজিব ও মুজিবুর খানের ছেলে আরিফ ধারালো অস্ত্রদিয়ে মেরিনকে কুপিয়ে হত্যা করে। তার দেওয়া স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে শ্রীনগর থানা পুলিশ মুন্সীগঞ্জ আদালত পাড়া থেকে গ্রেফতার করে শ্রীনগর থানায় নিয়ে আসে।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আলমগীর হোসেন জানান, গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরণ করে রিমান্ড চাওয়া হবে।

Comments are closed.