শ্রীনগরে পুত্র শোকে পিতার মৃত্যু!

প্রবাস ফেরত স্বামীকে হত্যা করে থানায় এসে স্ত্রীর আত্মসমর্পন
আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে প্রবাস ফেরত স্বামীকে হত্যা করে থানায় এসে আত্মসমর্পন করেছে এক স্ত্রী। মঙ্গলবার সকালে ঘাতক স্ত্রী মাজেদা বেগম (৩২) শ্রীনগর থানায় এসে দায়িত্বরত পুলিশ অফিসারকে জানায় সে তার স্বামী অলিউল্লাহ (৩৮) কে হত্যা করে ঘরে তালা দিয়ে রেখে এসেছে। পুত্রের মৃত্যু শোক সইতে না পেরে অলিউল্লাহর পিতা ইদ্রিস মোল্লা (৯৫) একই দিন রাত ৯টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে। এঘটনায় উপজেলার পুটিমারা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এর আগে দুপুর বারটার দিকে মাজেদা বেগমের দেওয়া তথ্য অনুসারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান উপজেলার পুটিমারা গ্রামের অলিউল্লাহর বসত ঘরের বারান্দা থেকে লাশটি উদ্ধার করে। এসময় অলিউল্লাহর হাত-পা ওড়না দিয়ে বাধা ও গলায় ওড়না পেচানো ছিল। আজ মঙ্গলবার রাতে অলি আহমেদের সৌদি আরব যাওয়ার কথা ছিল। এর আগেই স্ত্রী তাকে হত্যা করে।

অলিউল্লাহর পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, অলিউল্লাহ আঠার বছর ধরে সৌদি আরব প্রবাসী। মাঝে মাঝে সে দেশে আসতো। চৌদ্দ বছর আগে হাসাড়া গ্রামের নুরু খলিফার মেয়ে মাজেদা বেগমের সাথে তার বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। প্রবাসে থেকেই সে স্ত্রীর নামে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার জমি কিনে। সর্বশেষ গত তিন মাস পূর্বে অলিউল্লাহ দেশে এসে ওই জমি বিক্রি করে ব্যবসা করতে চাইলে স্ত্রী তাতে বাধ সাধে। উপায় না দেখে অলিউল্লাহ পুনরায় সৌদি আবর যাওয়ার জন্য চেষ্টা করে। স্ত্রী তাতেও বাধা দেয় এবং ভিসা সহ অলিউল্লাহর পাসপোর্টটি ছিড়ে ফেলে। এনিয়ে হাসাড়া ইউনিয়ন পরিষদে সালিশ হয়। পরে অলিউল্লাহ পুনরায় পাসপোর্ট বানিয়ে বিদেশ যাওয়ার উদ্যোগ নেয়। বিদেশ যাওয়ার আগের রাতেই পরিকল্পিত ভাবে দুধের সাথে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে ঘুমন্ত স্বামীকে খুন করে। এঘটনায় উলিউল্লাহর বড় ভাই মো ঃ আহসান উল্লাহ বাদী হয়ে মাজেদা বেগম, তার বাবা নুরু খলিফা ও দুই ভাই হাবিব এবং মাসুম সহ

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, লাশ উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনার সাথে আরো কেউ জড়িত কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Comments are closed.