বিটিভির মহা পরিচালকের স্বাক্ষর নকল করে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে

জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নৃত্য প্রশিক্ষক মেহেদি
মুন্সিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির নৃত্য প্রশিক্ষক মেহেদি হাসান বিটিভির মহা পরিচালকের স্বাক্ষর নকল করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, মেহেদি মুন্সিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির বিভিন্ন বয়সী নৃত্য শিল্পীদের কাছ থেকে বিটিভিতে নৃত্য পরিবেশন করানোর কথা বলে মহা পরিচালকের স্বাক্ষরিত একটি পত্র দেখান। যেখানে লেখা ছিল তিন হাজার টাকা প্রদান করলে অনুষ্ঠান করা যাবে এক বছর জন্য। আর অতিরিক্ত যাতায়াত ভাড়া বাবদ এক হাজার মোট চার হাজার টাকা করে প্রায় বিশ জনেরও অধিক শিক্ষার্থীদের নিকট হতে এই টাকা নিয়েছে মেহেদি হাসান।

মহাপরিচালকেরর নাম ও সিল বিহীন স্বাক্ষরিত চিঠি দিয়ে নৃত্য শিক্ষার্থীদের নিকট টাকা নেওয়ার জালিয়াতি ফাঁস হয়ে যাওয়াতে ফেসে গেছেন কথিত এই নৃত্য শিক্ষক। এই বিষয়ে বিটিভিতে কর্মরত মেহেদি হাসান বাবু বলেন, এটা মহাপরিচালকেরর স্বাক্ষর নয়। এতে নাম বা তার সিলও নেই। আর এতে টাকার অংকও দেয়া ছিল। এটা নেহাৎ জাল বলে তার ধারণা।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির জাকির বলেন, মেহেদি হাসানের এই জালিয়াতির জন্য অনেকে আমাকে ফোনে জানিয়েছেন।

মুন্সিগঞ্জের আরেক নৃত্যশিল্পী সুমি আক্তার বলেন, বিটিভিতে শিল্পীদের অনেক অনুষ্ঠান করিয়েছি, তবে টাকা চেয়ে আমাদেরকে কোন ফরম এর আগে দেয়া হয়নি। নতুন নৃত্য শিখতে আসা শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের বেকায়দায় ফেলে মেহেদির বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে।

সে শিল্পকলা একাডেমি ও মুন্সিগঞ্জ শিশু একাডেমীর নৃত্য প্রশিক্ষক। সেই সুবাদে অনেক শিক্ষার্থী তার কাছে নাচ শিখে।এই বিষয়ে জানতে চাইলে মুন্সিগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমী কালচারাল অফিসার মোখলেছা হিলালী বলেন, মেহেদি যদি এমনটা করে থাকে সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। শিল্পকলার সাথে এর সংশ্লিষ্টতা নেই। একই সুরে শিশু একাডেমীর মুন্সিগঞ্জের কর্মকর্তা জেসমিন বেগম বলেন, এটা তার ব্যক্তিগত বিষয়।

মেহেদি নৃত্য সারথী নামের একটি সংগঠন করে প্রশাসনের অনেকের সস্তানদের নৃত্য শিখানোর কারণে তাদের দিয়ে চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ীদের ফোন দিয়ে অনুষ্ঠানেরর নামে মোটা অংকের টাকা চাঁদাবাজি করিয়েছেন বলে অনেকে অভিযোগ করেছেন। এই বিষয়ে জানতে চাইলে, মেহেদি হাসান বলেন,মহাপরিচালকের স্বাক্ষরিত এই চিঠিটি আমাকে একজন দিয়েছেন। তাই অনুষ্ঠানের জন্য আমি এই টাকা নিয়েছি। মেহেদি ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য অন্যের দোষ দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জের একাধিক নৃত্য শিল্পী। নৃত্য শিল্পী মুন্না বলেন, বিটিভির মহাপরিচালক স্বাক্ষর নকল করে অর্থ জালিয়াতির ঘটনাটি তদন্ত করলেই সব কিছু বেরিয়ে আসবে। সরকারি এই টেলিভিশনটির প্রধান ব্যক্তির স্বাক্ষর নকল করে মেহেদি যে জালিয়াতি করেছেন তার সঠিক তদন্তের দাবি জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জের নৃত্যশিল্পীবৃন্দ।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Comments are closed.