সিরাজদিখানে মোবাইল ফোনের জন্য’ স্কুলছাত্র খুন

মঈনউদ্দিন সুমন: মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় বাহার আলিফ (১৪) নামের এক স্কুলছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সে উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামকৃষ্ণদী গ্রামের সৌদিপ্রবাসী বাদল শেখের ছেলে।

আলিফের ক্ষত-বিক্ষত লাশ আজ শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সিরাজদিখান থানার পুলিশ উদ্ধার করে।

সে উপজেলার শেখ মীয়ার হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র ছিল। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আলিফ আজ জুমার নামাজের আগে বাড়িতেই ছিল। এরপর আর তাকে পাওয়া যায়নি। অনেক খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বিকেল ৩টায় বাড়ির দক্ষিণের ইছামতি নদীর খালের পাড়ে তার লাশ দেখা যায়। কচুরিপানা দিয়ে ঢাকা অবস্থায় এলাকাবাসী লাশটির পা দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে। পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ থানায় নিয়ে আসে।

নিহত স্কুলছাত্রের চাচা মোক্তার হোসেন বলেন, ‘আমাদের পরিবারের কারো সঙ্গে কোনো পূর্বশত্রুতা নেই। তবে ধারণা করছি, তার হাতে একটি দামি মোবাইল ফোন ছিল। সেটি নিয়ে গেছে হত্যাকারীরা। মোবাইল ফোনের জন্য তাকে হত্যা করা হতে পারে।’

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়ারদৌস হাসান জানান, পূর্বপরিকল্পিতভাবে আলিফকে হত্যা করা হয়েছে। মোবাইল ফোনের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি ধারণা করেন। তার শরীরে ৩৮টি দেশীয় অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। তাকে কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এনটিভি

Comments are closed.