অপহরণের পর পালিয়ে রক্ষা পেলেন দুজন

মুক্তিপণ না পেয়ে ভারতে পাচারচেষ্টা
মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার দুই ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় জিম্মি করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হয়। টাকা না পেয়ে ভারতে পাচারের চেষ্টা করে অপহরণকারীরা। তিন দিন পর গতকাল মঙ্গলবার পালিয়ে রক্ষা পেয়েছেন দুজন।

গজারিয়া উপজেলার পুরান বাউশিয়া গ্রামের মজি সরকারের ছেলে মো. হানিফ সরকার (২৪) ও মেয়ের জামাই সুমন মিয়া (২৮) মোবাইল অ্যাক্সেসরিজ ব্যবসায়ী। তাঁদের পরিচিত জামাল মিয়া ব্যবসা বিস্তারের প্রলোভন দেখিয়ে গত শুক্রবার তেঁতুলিয়ায় নিয়ে যায়। একপর্যায়ে রবিবার রাতে দুজনকে নির্যাতন করে সাড়ে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। একপর্যায়ে মুক্তিপণ আড়াই লাখ টাকায় নামিয়ে আনে।

ফিরে আসা হানিফ সরকার বলেন, ‘আমার মোবাইল ফোন থেকে বাড়িতে স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে মুক্তিপণ পৌঁছে দিতে ক্রমাগত চাপ দিতে থাকে। তেঁতুলিয়ার মাগুরমারীর দেলোয়ার (৪৩) অপহরণচক্রের হোতা। নারী, শিশু অপহরণ ও পাচারের সঙ্গে জড়িত। স্থানীয় থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তাঁর বিরুদ্ধে কয়েক ডজন মামলা রয়েছে। ’

হানিফের ভাই আলী আজম সরকার বলেন, ‘আমরা মুক্তিপণের টাকা আত্মীয়দের দিয়ে পৌঁছে দিতে সোমবার রাতে তেঁতুলিয়ার উদ্দেশে রওনা দিই। টাকা পেতে দেরি দেখে অপহরণ চক্র দুজনকে ভারতে পাচারের জন্য সীমান্তে নিয়ে যায়। তখন দুজন কৌশলে পালিয়ে আসেন। ’ স্বজনরা অভিযোগ করেন, ‘গজারিয়া থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ কোনো সহযোগিতা করেনি। ’

গজারিয়া থানার ওসি মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা বলেন, ‘স্বজনরা মামলা করতে এলে আমি তাঁদের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছি। ’

কালের কন্ঠ

Comments are closed.