আদালত থেকে বিচার প্রার্থীকে অপহরণের চেষ্ঠা!

মুন্সীগঞ্জ আদালতের বারান্দা থেকে আলমগীর কবীর (৪০) নামে এক বিচার প্রার্থীকে অপহরণের চেষ্ঠার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিরাপত্তাহীন ওই বিচার প্রার্থীকে আদালতের বিচারকের নির্দেশে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে পৌছে দিয়েছে মুন্সীগঞ্জ কোর্ট পুলিশ। মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ১ নং আমলী আদালতের বারান্দায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী বিচারপ্রার্থী আলমগীর কবীর মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের পানহাট্রা গ্রামের মৃত আবুল এসেম মাদবরের ছেলে।

ভুক্তভোগী আলমগীর কবীর ও কোর্ট পুলিশ জানান, মুন্সীগঞ্জ সদরের মিরকাদিম পৌরসভার সুধারচর এলাকার সানফ্লাওয়ার কোল্ড স্টোরেজের মালিক মনির হোসেন ও লেবার সর্দার নজরুল ইসলাম এবং জাহাঙ্গীর আলমকে আসামি করে আলমগীর কবীর বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ ১ নং আমলী আদালতে ১২ লাখ টাকার প্রতারণা ও হত্যাপ্রচেষ্টা মামলা করেন।


এ মামলায় তারা জামিন নিতে এলে আলমগীর কবীর আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের বিরোধীতার জন্য আদালতে আসেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ১ নং আমলী আদালতের বারান্দা থেকে আসামিদের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী চর সৈয়দপুরের দৌলত খান ও রামেরগাঁও গ্রামের রহমতউল্লাহ’র নেতৃত্বে মামলার বাদী আলমগীর কবীরকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্ঠা চালায়।

এ সময় তার চিৎকার ও আইনজীবী হালিম হোসেনের সহায়তায় রক্ষা পায়। এ ঘটনা তাৎক্ষনিক ওই আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হায়দার আলীকে জানান আইনজীবী। এতে আদালতের ভেতরে বিচারকের নির্দেশে দুপুর ২টা পর্যন্ত আলমগীর কবীরকে নিরাপত্তা দিয়ে রাখা হয়। আদালতের বিচার কাজ শেষ হওয়ার পর বিচারক মো. হায়দার আলীর নির্দেশে কোর্ট পুলিশ নিরাপত্তাহীন আলমগীর কবীরকে গ্রামের বাড়ি পৌঁছে দেয়ার নির্দেশ দেন। এতে পুলিশ তাদের পিকআপভ্যানে করে বিকেল ৩টার দিকে ভুক্তভোগী আলমগীর কবীরকে রামপাল ইউপি চেয়ারম্যান মো. বাচ্চু শেখের জিম্মায় দিয়ে আসেন। বর্তমানে আলমগীর কবীর নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।

Comments are closed.