বিসিসিআইজে’র মতবিনিময় সভা

রাহমান মনি: সম্প্রতি বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে) প্রথম নির্বাচিত কার্যকরী পরিষদের সঙ্গে জাপানে বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভা শুরু হয়েছে বণিক সমিতির উদ্যোগে।

২৭ নভেম্বর ২০১৫ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক আনুষ্ঠানিক ঘোষণার পর নির্বাচিত প্রতিনিধি দল প্রথমবারের মতো নির্বাচিত হয়ে জাপানের বিভিন্ন অঞ্চলভিত্তিক মতবিনিময় সভা করে প্রবাসী ব্যবসায়ীদের আরও কাছে যাবার ঘোষণা দেন।

রোডম্যাপ ঘোষণার পর প্রথম মতবিনিময় সভাটি হয়েছিল ১৯ ফেব্র“য়ারি ২০১৫ খোদ রাজধানীর টোকিওর কিতাসিটি ওজি হোকুতোপিয়া হলে। এরপর দ্বিতীয় মতবিনিময় সভাটি অনুষ্ঠিত হয় কানাগাওয়া প্রিফেকচারের সাগামিহারা সিটির সাগামিহারা সিমিন কাইকানে। এভাবে বিভিন্ন স্থান ঘুরে আবার রাজধানী টোকিওতে আয়োজন করা হয়েছিল এই মতবিনিময় সভার।

প্রায় ১০ মাস পর আবারও একই স্থানে অর্থাৎ ওজি হোকুতোপিয়া হলে ২৮ অক্টোবর ২০১৬ শুক্রবার ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের সঙ্গে মতবিনিময় সভাটির উদ্যোক্তা ছিলেন চৌধুরী ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার চৌধুরী শাহিন।

সান্ধ্যকালীন এই মতবিনিময় সভায় টোকিও, কানাগাওয়া, সাইতামা, চিরা, গুনমা এবং ইবারাকি প্রিফেকচারের বিভিন্ন ব্যবসায়ী যোগ দেন। বিসিসিআইজে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিসিসিআইজে প্রতিষ্ঠার অন্যতম উদ্যোক্তা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, এনকে ইন্টারন্যাশনালের সিইও এমডি এস ইসলাম নান্নু, নির্বাচন পরিচালনা পর্ষদের সুনীল রায়, হাফেজ আলাউদ্দিন, জহিরুল ইসলাম, নতুন উদ্যোক্তা এবং প্রবাসী মিডিয়া কর্মীগণ।

সংগঠনের সভাপতি বাদল চাকলাদারের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভাটি সঞ্চালনা করেন আব্দুর রাজ্জাক, শাহিন রহমান এবং কাজী এনামুল হক।

আব্দুর রাজ্জাকের স্বাগতিক বক্তব্যের পর কাজী এনামুল হক বিসিসিআইজে পরিচালনা পর্ষদ গঠনের নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং নির্বাচিত হবার পরবর্তী এক বছরের সার্বিক কর্মকাণ্ড তুলে ধরে বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন। এরপর সভাপতি বাদল চাকলাদার মতবিনিময় সভাটি সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেন।

বিসিসিআইজে নেতৃবৃন্দকে কাছে পেয়ে প্রবাসী ব্যবসায়ীরা বিগত দিনের (এক বছরের) কর্মকাণ্ডে হতাশা ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, মন্ত্রীরা আসলেই কেবল আপনাদের দৌড়ঝাঁপ দেখা যায়, কিন্তু ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দরা জাপান আসলে তেমন কোনো কর্মকাণ্ড চোখে পড়ে না। বিগত এক বছরে কয়েকটি মতবিনিময় সভা ছাড়া আর কিছুই দিতে পারেননি আপনারা। সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হচ্ছে একটি সাধারণ সভার আয়োজন করা এবং নতুন নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্তি করা থেকে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন আপনারা। বণিক সমিতির সদস্যদের কাছে তারা ব্যবসা সংক্রান্ত ছাড়াও সামাজিক দায়বদ্ধতা আশা করেন।

ব্যবসায়ীদের প্রশ্নের জবাবে সভাপতি বাদল চাকলাদার বলেন, আট বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠা পাওয়া এই সংগঠনটির প্রথম নির্বাচিত কমিটির কাছে আপনাদের প্রত্যাশা পাহাড়সম। আমাদের একটু সময় দিতে হবে, আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন এই ব্যাপারে। টোকিওর কানদাতে আমরা একটি অফিস নিয়েছি। নতুন লিস্ট নিয়ে কাজ চলছে। যথাশীঘ্রই আমরা একটি সাধারণ সভা ডেকে হালনাগাদ সবকিছু জানাবো আপনাদের। ব্যবসায়ীদের সব ধরনের সহযোগিতায় আমরা বদ্ধপরিকর।

সাপ্তাহিক

Comments are closed.