শ্রীনগরে টাকার বিনিময়ে অনুমোদন পাচ্ছে বিএনপির ইউনিয়ন কমিটি

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে টাকার বিনিময়ে ইউনিয়ন বিএনপির নতুন কমিটি অনুমোদনের অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি শ্রীনগর উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি অনুমোদন লাভ করে। এই কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন শহিদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন আবুল কালাম কানন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও এরশাদ সরকারের সাবেক উপ প্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন সমর্থিত পূনাঙ্গ কমিটিতে জাতীয় পার্টি আমলের একাধিক নেতার ঠাই হলেও অনেক ত্যাগী নেতা বাদ পরেছেন এমন বিতর্কের রেশ কাটকে না কাটতেই টাকার বিনিময়ে ইউনিয়ন বিএনপির নতুন কমিটি অনুমোদনের অভিযোগ উঠল।

বিএনপির একাধিক সুত্র জানায়, উপজেলা কমিটি অনুমোদনের পরপরই ১৪ টি ইউনিয়নে বিএনপির নতুন কমিটি গঠনের জন্য মাঠে নামে তারা। এতে ইউনিয়ন বিএনপির ত্যাগী নেতা হলেও আগের কমিটির সভাপতি মমিন আলী গ্রুপের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন এমন অজুহাতে অনেক নেতা কর্মীকে রাখা হয়েছে বাদ দেওয়ার তালিকায়। এর সত্যতা ফুটে উঠে দু-একটি ইউনিয়নের কমিটি গঠনের পর পরই। ইতিমধ্যে নতুন কমিটির বিরুদ্ধে ভাগ্যকূল ইউনিয়নের যোগ্য ও মেধাবীদের বাদ দিয়ে টাকার বিনিময়ে হাইব্রিডদের নিয়ে কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে।

এ নিয়ে উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়ন বিএনপিতে বইছে ক্ষোভের ঝড়। তবে উপজেলা বিএনপির নবনির্বচিত সভাপতি শহিদুল ইসলাম টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন পদ বঞ্চিতরা ক্ষুদ্ধ হয়ে এটা রটাচ্ছে। ওই ইউনিয়নের সভাপতি হয়েছেন আগের কমিটির বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক এমদাদ সরদার এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন শফিকুল ইসলাম শিপন। শিপনকে ৮ লাখ টাকার বিনিময়ে ভাগ্যকুল বিএনপির সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে বলে ওই ইউনিয়নের একাধিক বিএনপি নেতা অভিযোগ করেছেন।

এবিষয়ে আগের কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মিরাজ হোসেন তামিম জানান, শিপনের ভাগ্যকুল ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সদস্য পদও নেই। সে সৌদি আরব প্রবাসী। ইউনিয়ন বিএনপিতে তার কোন অবদান নেই। অথচ তাকে ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এমন হওয়ায় দলে যারা ত্যাগ স্বীকার করে কাজ করে হামলা-মামলার স্বীকার হয়েছে তারা উৎসাহ হারিয়ে ফেলবে।