ইসলামিক ফাউন্ডেশন যাকাত ফান্ডের দ্রবাদি খোলা আকাশের নিচে

ভিক্ষুকের খোঁজে প্রশাসন
মুন্সিগঞ্জ ইসলামিক ফাউন্ডেশন যাকাত ফান্ডের টাকা কেনায় সেলাই মেশিন ও ভ্যানগাড়ী বিতরণ করতে পারছে না। এর ফলে ভ্যান গাড়ী খোলা আকাশের নিচে পড়ে রোদে শুকাচ্ছে। আর বৃষ্টিতে ভিজছে। মুলত যাকাত এর নীতিমালা অনুযায়ি এ গুলো বিতরণ হওয়ার কথা। কিন্তু সেই নীতিমালা এখানে উপেক্ষিত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

মুন্সিগঞ্জ ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর উপ পরিচালক বজলুর রহমান বলেন, আমি এখানে নতুন এসেছি। আবার আগের কর্মকর্তা ও সাবেক জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল যাকাত ফান্ডের কেনা সেলাই মেশিন ও ভ্যানগাড়ী মুন্সিগঞ্জ জেলার ভিক্ষুকদের মাঝে বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলেন। কিন্তু আমাদের কাছে এ মুহূর্তে জেলা কোন ভিক্ষুকের তালিকা নেই। তারা দু’জনেই এখান থেকে বদলি হয়ে যাওয়ার কারণে এ বিষয়ে বর্তমানে সমস্যা হচ্ছে। তবে চলতি মাসের জেলা সমন্বয় সভায় এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। মুন্সিগঞ্জ জেলার ৬টি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের কাছে ভিক্ষুকের তালিকা চাওয়া হয়েছে। সেই তালিকা পেলে এ কাজটি সম্পন্ন হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এর আগে যাকাত ফান্ডের জিনিসপত্র বিতরণ প্রথা অনুযায়ি আমাদের কাছে ৬ উপজেলার তালিকা রয়েছে।

চলতি অর্থ বছরে মুন্সিগঞ্জ থেকে প্রায় ১৩ লাখ যাকাতের টাকা আদায় হয়। কেন্দ্র থেকে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ টাকা মুন্সিগঞ্জের জন্য বরাদ্দ হয়। গরীবের মাঝে বিতরণের লক্ষে সেই টাকা দিয়ে ১০টি ভ্যানগাড়ী ও ৯০টি সেলাই মেশিন কেনা হয়েছে জুন মাসের দিকে। এরপর থেকে এগুলো এখন পড়ে রয়েছে।

অনেকের অভিযোগ ভিক্ষুকরা সাধারণত সেলাই কাজে পারদর্শি নয়। সে কারণে তাদের মাঝে এটি বিতরণ করা হলে তারা নাম মাত্রে এ গুলো বিক্রি করে দিতে পারে। তাছাড়া মুন্সিগঞ্জে স্থানীয় কোন ভিক্ষুক নেই। এখানকার ভিক্ষুকরা বহিরাগত। এদের মাঝে এগুলো দেয়া হলে তারা এখান থেকে চমপ্ট দেয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এর ফলে এ কাজের সফলতা জলে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Comments are closed.