সালিশে বেত্রাঘাতে ২৩ শিক্ষার্থী আহত, মামলা

dddমুন্সীগঞ্জে নৌ-ভ্রমণে গিয়ে স্কুলছাত্র আরাফাত হোসেনের মৃত্যুর ঘটনায় গ্রাম্য সালিশে বেত্রাঘাতে ২৩ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ২৫টি করে বেত্রাঘাত করা হয়। এছাড়াও সালিশে শিক্ষার্থীদের সাড়ে ১২ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতেই আহত শিক্ষার্থী মো. সুমনের বাবা তোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে চেয়ারম্যানসহ ২৫ জনের বিরোদ্ধে মামলা করেন। রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসী জানান, গত ১৫ সেপ্টেম্বর নৌ-ভ্রমণে গিয়ে নিখোঁজ হয় শহরের বাগবাড়ি এলাকার নাসির উদ্দিনের ছেলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র আরাফাত। এর তিন দিন পর সিরাজদীখান উপজেলার দোসরপাড়া এলাকার ইছামতি নদী থেকে আরাফাতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে গ্রাম্য সালিশ বসে। সালিশে পঞ্চসার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা ২৩ শিক্ষার্থীকে ২৫টি করে বেত্রাঘাত ও প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে সাড়ে ১২ লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেন।

এ ব্যাপারে পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা সাংবাদিকদের বলেন, পঞ্চায়েত কমিটি শিক্ষার্থীদের বিচার করেছে। চেয়ারম্যান হিসেবে আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম।

মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. সঞ্জয় পোদ্দার জানান, আহত শিক্ষার্থীদের সবাই সবাই কিশোর। তবে তাদের আঘাত তেমন গুরুতর নয়। সবার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাঠি দিয়ে আঘাত করা হতে পারে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, ঘটনার কিছুই আমি জানি না। বর্তমানে আমি ঢাকায় আছি। তবে এরকম ঘটনা ঘটে থাকলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

এদিকে, শিক্ষার্থীদের বেত্রাঘাতের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ২৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এ মামলায় এখন পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মুন্সীগঞ্জ সদর খানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইউনুস জানান, ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করা হলেও এখন পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

খোলা কাগজ

Comments are closed.