গজারিয়ায় বরযাত্রীবাহী লঞ্চে দুর্ধর্ষ ডাকাতি

স্বর্ণালঙ্কারসহ মালামাল লুট ॥ আটক-৬
মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বরযাত্রীবাহী লঞ্চে দুধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা এসময় ২০ভরি স্বর্ণালঙ্কার, নগদটাকাসহ, মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতির ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে লঞ্চের মালিকসহ ৬ জনকে আটক করেছে গজারিয়া থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলেন, লঞ্চের মালিক আঃ সালাম শেখ, স্টাফ নূরুল হক (৪০), মাষ্টার মো: সাহেদ আলী (৪৪), কেরানী আব্দুল হাই(৪৫) আবুল কাশেম ওমনির হোসেন। শুক্রবার রাত পৌনে আটটার দিকে গজারিয়ার মেঘনা নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

বরের বাবা নূরুল আমিন জানান, শুক্রবার তাঁর ছেলে মো. রিপনের বিয়ে উপলক্ষে এমভি বন্ধন-৮ নামে একটি লঞ্চ ভাড়া করে পুড়ান ঢাকার মিলব্রাকের উদ্দেশ্যে সকালে গজারিয়ার হোগলাকান্দি ছেড়ে যায়। ভাড়া করা লঞ্চযোগে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করে ফেরার পথে সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে গজারিয়া লঞ্চ ঘাটের কাছে কিছু যাত্রী নামিয়ে দিয়ে লঞ্চটি আবার হোগলাকান্দির উদ্দেশ্যে রওনা করে। কিছু দূর যাবার পর রাত পোনে আটটার দিকে ষোল আনি এলাকায় পৌছলে ১৫/২০ জনের ডাকাত দল ট্রলারযোগে লঞ্চের গতিরোধ করে। এসময় ডাকাতদল লঞ্চের যাত্রীদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বরযাত্রীদের মালামাল লুটে নেয়। তারা দেড় লক্ষাধিক নগদ টাকা, ২০ ভরি স্বর্ণালংকার ও প্রায় ৪০টি মোবাবইল সেটসহ ৭/৮ লাখ টাকার মালামাল লুট করে। এ ঘটনায় ডাকাতরা বরযাত্রীদের সাত,আট জনকে কুপিয়ে আহত করে। তাছাড়া ডাকাতের হামলায় আহত হয়েছে আরো প্রায় ৩০ জন।

এ প্রসঙ্গে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা জানান, বরের বাবা নুরুল আমিন বাদী হয়ে গজারিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ডাকাতির ঘটনায় লঞ্চ মালিকসহ ৬জনকে সন্দেহজনকভাবে জিঞ্জাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তাদেরকে জিঞ্জাসাবাদ চলছে।

জনকন্ঠ

Comments are closed.