গজারিয়ার স্ত্রী হত্যার পর স্বামীর আত্মসমর্পণ

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ভিটিকান্দি গ্রামে মঙ্গলবার সকালে স্ত্রীকে নৃশংসভাবে হত্যার পর পাষণ্ড স্বামী সোহের রানা (৩৫) পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। নিহতের নাম হাসনা হেনা (২৮)। সে ভিটিকান্দি গ্রামের মৃত সেরুন শিকদারের মেয়ে।

প্রতিবেশিরা জানায়, মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে বৃষ্টি শুরু হলে সোহেল রানা তার স্ত্রী হাসনা হেনাকে শাপলা তোলার নাম করে জেএমআই ইন্ডাস্ট্রির পিছনের ডোবায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে সে প্রথমে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পরে মৃত্যু নিশ্চিত করতে ব্লেড দিয়ে গলা ও মুখমন্ডলের বিভিন্ন জায়গা কেটে দেয়। হত্যার পর লাশ কাশবনের পাশের ডোবায় কচুরিপানার নিচে লুকিয়ে রাখে। পরে থানায় এসে আত্মসমর্পণ করে। পুলিশ তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দুপুর ২টার দিকে ডোবা থেকে লাশ উদ্ধার করেছে।

হত্যার কারণ হিসেবে স্বামী সোহেল রানা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীর পরকীয়ার কথা বলেছেন। তার দাবি তার স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশি এক যুবকের সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত ছিল। তবে এসব কথা অস্বীকার করেছেন হাসনা হেনার বড় বোন আকলিমা বেগম। তার দাবি ঘটনাটি ভিন্নখাতে নিতে সোহেল রানা মিথ্যা কথা বলছেন।

এ ব্যাপারে গজারিয়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা জানান, আত্মসমর্পণের পর তার তথ্যমতে আমরা এলাকাবাসীর সহযোগিতায় লাশ উদ্ধার করেছি। আসামি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। বিষয়টি আমরা আন্তরিকতার সঙ্গে দেখছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.