শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি ফেরি চলাচল হুমকির মুখে

মুন্সীগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। নিম্নাঞ্চলের পানিবন্দি পরিবারগুলোর দুভোর্গ বেড়েছে। লৌহজং উপজেলার কলমা, ডহরী, শামুরবাড়ি, কনকশার, যষলদিয়া, কান্দিপাড়া, টঙ্গীবাড়ি উপজেলার হাসাইল, বানারী, পাঁচনখোলা, নগরযোয়ার, পাঁচগাঁও, কামারখাড়া ও শ্রীনগর উপজেলার কবুতরখোলাসহ পদ্মা তীরের গ্রামগুলো কয়েক হাজার পরিবার এখন বন্যাকবলিত। পানি বেড়ে যাওয়ায় শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি ফেরি ঘাট জলম¤œ হওয়ার আশঙ্কা দিয়েছে। ইতোমধ্যেই কাওড়াকান্দির একটি ঘাট তলিয়ে গেছে। তাই গুরুত্বপূর্ণ এই ফেরি সার্ভিস হুমকির মুখে রয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আউয়াল জানান, পদ্মা সোমবার মুন্সীগঞ্জের ভাগ্যকূল পয়েন্টে বিপদসীমার ৫৮ সেন্টিমিটার এবং মাওয়ায় ৩৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে বইছে।

তীব্র স্রোতের কারণে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি ফেরি চলাচল এখনও স্বাভাবিক হয়নি। উচ্চ ক্ষমতার টাক বোট দিয়ে ফেরিগুলো লৌহজং টার্নিংয়ে টেনে নেয়া হচ্ছে। এখন ১৩টি ফেরি চলাচল করছে। শিমুলিয়া প্রান্তে শতাধিক ট্রাকসহ উভয়পাড়ে ২শ’ যান পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। তবে পানি বেড়ে যাওয়ায় ফেরি ঘাটের পানি ছুই ছুই করছে। আশপাশের দোকানপাটে পানি উঠেছে। এখনও শিমুলিয়া প্রান্তে ৩টি ঘাটই সচল রয়েছে। তবে কাওড়াকান্দিতে ২ নম্বর ঘাট তলিয়ে গেছে। যানবাহন ওঠা-নামা করছে ১ নম্বর এবং ৩ নম্বর ঘাট দিয়ে।

বাসস

Comments are closed.