শ্রীনগরে প্রবাস থেকে পাঠানো অর্থের হিসাব চাওয়াই কাল হয়েছে আওলাদের

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে স্ত্রীর কাছে বিদেশ থেকে পাঠানো অর্থের হিসাব চাওয়াটাই কাল হয়েছে এক যুবকের। এ নিয়ে শশুড় বাড়ীর লোকজনের মারধর ও অপমান সইতে না পেরে আওলাদ হোসেন (২৮) নামে এক যুবক গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। সে উপজেলার আলমপুর দক্ষিন পাড়া গ্রামের শেখ হানিফের ছেলে। সোমবার সকালে পুলিশ ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, আওলাদ হোসেনর সাথে তিন বছর পূর্বে একই গ্রামের কামাল শেখের মেয়ে কামরুন নাহারের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরই আওলাদ সিংগাপুর চলে যায়। দুই বছর সিংগাপুর থাকার পর দেশে এসে প্রায় এক বছর আগে সে পুনরায় রাশিয়া চলে যায়। প্রবাসের উপার্জিত সকল অর্থ সে তার স্ত্রীর কাছে পাঠাতো। কিছু দিন আগে আওলাদ দেশে এসে তার স্ত্রীর কাছে হিসাবে চাইলে দুজনের মধ্যে কলহ দেখা দেয়। প্রায় বিশ দিন পূর্বে হিসাব দেওয়ার কথা বলে শশুড় বাড়ীর লোকজন আওলাদকে তাদের বাড়ীতে ডেকে নেয়। সেখানে বাক বিতন্ডার এক পর্যায়ে আওলাদের শশুড় কামাল, আত্মীয় সাবেদ আলী সহ ৮/১০ জন মিলে আওলাদের উপড় হামলা চালিয়ে তাকে রক্তাক্ত জখম করে।

খবর পেয়ে আওলাদের বাবা হানিফ ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। আওলাদের পরিবার বিষয়টি সুরাহার জন্য হাসাড়া ইউনিয়ন পরিষদে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এনিয়ে দু দফা সালিশ মিমাংসার আয়োজন করা হলেও মেয়ের পরিবার সেখানে হাজির হয়নি। তাদের আতœীয় সাবেদ আলী ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করায় উল্টো মোবাইল ফোনে অনবরত হুমকি দিতে থাকে।

এতে অপমানে ও ক্ষোভে রবিবার রাতে আওলাদ ঘরের আড়ার সাথে ফাস দিয়ে আতœহত্যা করে। ঘটনার পর থেকে সাবেদ আলী সহ আওলাদের শশুড় বাড়ীর লোকজন পলাতক রয়েছে। এব্যাপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, থানায় ইউডি মামলা হয়েছে তবে আওলাদের পরিবার অন্যকোন অভিযোগ দায়ের করলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.