মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের নৌকার সমর্থকেরা লঙ্গরখানায়

পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে নৌকা মার্কায় নির্বাচন করায় মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের দেড় হাজার সমর্থক ঘরছাড়া হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

চেয়ারম্যান পদে নৌকা মার্কায় নির্বাচন করে হেরে যাওয়া মোঃ রিপন পাটোয়ারী অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে নৌকামার্কা সমর্থকদের বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর করেছে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের নৌকা সমর্থকের দেড় হাজার পুরুষ, মহিলা ও শিশু গ্রামছাড়া হয়ে মুন্সীগঞ্জ শহরের বিভিন্ন জায়গায় অব্স্থান করছেন।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে ইউনিয়নের প্রার্থীদের মধ্যে চলে শক্তির মহড়া। সাথে চলে হামলা, সংঘর্ষ, ককটেল হামলা ও গুলি বিনিময়ের ঘটনা। আহত হয়েছেন শতাধিক।

এ ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী মহসিনা হক কল্পনা আনারস প্রতীকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বেসরকারীভাবে বিজয়ী হন। নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর থেকে বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীক কল্পনা সমর্থকরা মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে হামলা করছেন বলে অভিযোগ করেন গ্রামবাসী। নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী কল্পনা পাস করায় আতংকিত হয়ে নির্বাচনী গ্রামগুলোতে পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে।

২৯ মে বিকাল থেকে হাজার হাজার নৌকা সমর্থক পুরুষ শহরের পুরাতন কাচারীতে এসে অবস্থান নেন। তারা ফের নির্বাচনের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

নির্বাচনপরবর্তী মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের রাজারচর, মুন্সীকান্দি, মোল্লাকান্দি, নতুন আমঘাটা, বড় আমঘাটা, চরডুমুরিয়া, সামারচর, কংশপুড়া, চৈতারচর, মহেষপুর, মাকহাটী, আনন্দপুর, নোয়াদ্দা, ঢালীকান্দি, বেহারকান্দি, নৌকা সমর্থক পুরুষসহ অনেক মহিলাসহ শিশু এখন ঘরছাড়া।

সদ্য অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ভোট বর্জনকারী নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী রিপন পাটোয়ারী দ্য রিপোর্টকে বলেন, মহসিনা হক কল্পনার সমর্থকরা পুরো ইউনিয়নে শোডাউন, ককটেল হামলার ভয় দেখায়। অনেক নৌকার সমর্থকের বাড়িতে হামলা হয়েছে। এমনকি আমার গ্রামের বাড়িটাও বাদ পড়েনি। এসব গ্রামে ছোট ছোট বাচ্চা,মহিলা আর বৃদ্ধরা বসবাস করছেন। রাত হলেই আতংকিত হয়ে পড়েন তারা। আবার অনেক গ্রামে মহিলারাও বাড়িতে নাই।

অভিযোগের ব্যাপারে সদ্য নির্বাচিত চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা দ্য রিপোর্টকে বলেন, তাদের বের করে দেওয়া হয়নি। তারা এমনিতে চলে গেছেন। পরিস্থিতি ঘোলাটে করার জন্য রিপন পাটোয়ারি এমন করছেন।

মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার দ্য রিপোর্টকে জানান, তফসিল ঘোষণার পর থেকেই পুলিশ এখানে আছে। পক্ষ-বিপক্ষে অভিযোগ আছে।

দ্য রিপোর্ট

Comments are closed.