শ্রীনগরে স্কুলে ঢুকে ছাত্রদের উপর বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলা!

শ্রীনগরে স্কুলে ঢুকে আন্দোলনকারী ছাত্রদের উপর হামলা করেছে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা। শনিবার সকাল ১১ টায় উপজেলার মজিদপুর দয়হাটা কেসি ইনষ্টিটিউশনে প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবীতে ছাত্ররা আন্দোলন শুরু করলে এঘটনা ঘটে। এসময় সন্ত্রসী হামলায় ওই বিদ্যালয়ের ৪ ছাত্র আহত হয়।

ছাত্রছাত্রী ও স্থানীয়রা জানায়, গত ২৪ মে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিতাই চন্দ্র দাস অগ্রনী ব্যাংকের শ্রীনগর শখায় প্রতারণার মাধ্যমে জাল টাকা গছিয়ে দেন। শিক্ষকের প্রতারণার ঘটনাটি ওইদিনই ব্যাংকের সিসি ক্যামারায় ধরা পরলে নিতাই চন্দ্র দাস প্রতারণার বিষয়টি স্বীকার করেন। এনিয়ে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। গতকাল গ্রীষ্মকালীন ছুটির পর বিদ্যালয়ের ক্লাস শুরু হলে ওই ঘটনার সূত্রধরে ছাত্ররা প্রধান শিক্ষকের ক্লাস বর্জনের ঘোষনা দিয়ে তার অপসারণের জন্য আন্দোলন শুরু করে।

আন্দোলনকারী ছাত্রদের দমনের জন্য শিক্ষক নিতাই চন্দ্র দাস মোবাইল ফোনে স্থানীয় সন্ত্রাসী রাজীবকে খবর দেন। বেলা ১১ টার দিকে রাজিব তার ১০-১২ জন সঙ্গীসহ লাঠিসোটা নিয়ে বিদ্যালয়ের শ্রেণী কক্ষে ঢুকে ছাত্রদের উপর হামলা চালায়। এসময় দশম শ্রেণীর ছাত্র মো: জাকারিয়া ও গোবিন্দ বাড়ৈ সহ ৪ জন আহত হয়। এঘটনা নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য রাজিব বাহিনী হুমকি দিয়ে স্কুল থেকে বের হয়ে যায়। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রাজিব বাহিনীর ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না।

পরে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির দুই সদস্য এবং বীরতারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজিম হোসেন খান ও সাবেক চেয়ারম্যান গাজী শহিদুল্লাহ কামাল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে রাজিব তাদের সামনে ছাত্রদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে। এর পরপরই বিদ্যালয়ের ক্লাস বাতিল করে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়।

এব্যাপারে প্রধান শিক্ষক নিতাই চন্দ্র দাস জানান, বহিরাগতরা অতর্কির্তে ক্লাশে প্রবেশ করেছে। কিন্তু বহিরাগতদেরকে ডেকে আনা হয়নি। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য সুরুজ দাস জানান, আপাতত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা হয়েছে। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি দেশের বাহিরে অবস্থান করছেন তিনি দেশে ফিরলে এবিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, তিনি নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করার জন্য গজারিয়া উপজেলায় আছেন। এলাকায় ফিরে খোজ নিবেন।

Comments are closed.