আউটশাহী ও বেতকায় নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন বিএনপি নেতারা

৭ মে চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে প্রচার প্রচারনা। এদিকে আউটশাহী ও বেতকা ইউনিয়নের বিএনপি নেতারা নিজ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট না চেয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের নৌকা প্রতিকে ভোট প্রার্থনা করছেন।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী ভোটারদের সাথে আলাম করে জানা যায়, বেতকা ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের মনোনিত প্রার্থী শওকত আলী খাঁন মুক্তারের পক্ষে নৌকায় ভোট চাইছেন টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি খাঁন মনিরুল ইসলাম পল্টন, উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি পটু খাঁ, বেতকা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারন সম্পাদক ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লেলিন। এ ছাড়াও অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়নের বিএনপি থেকে মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রব খাঁন নৌকা প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করার জন্য তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়ে তিনি এখন আওয়ামীলীগ প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করছেন। এলাকাবাসী জানান, ওই সমস্ত সুবিধাবাদী নেতারা এখন নৌকার পক্ষে কাজ করলেও জাতীয় নির্বাচনে তাঁরা কোমর বেঁধে বিএনপির পক্ষে নির্বাচন করেন। এ ছাড়া আউটশাহী ইউনিয়নে বিএনপির দলীয় প্রার্থী হিসাবে শাখাওয়াত হোসেন খান আশিক প্রার্থী থাকা সত্বেও ওই ইউনিয়নের বিএনপির নেতারা নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সেকান্দর বেপারীর নির্বাচন করছেন। সাবেক উপজেলা বিএনপির সভাপতি হান্নান শেখ এখন বিএনপির প্রার্থীকে বাদ দিয়ে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সেকান্দর বেপারীর পক্ষে এলাকায় ভোটারদের কাছে নৌকা মার্কার জন্য ভোট চাইছেন। এছাড়া আউটশাহী ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রহমতউল্লাহ, ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সভাপতি শাহজাহান বেপারী, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বেপারী, মোহাম্মদ আলী, আসলাম ফকির সহ অন্যান্য নেতারা ধানের শীষ মার্কার পরিবর্তে এখন তাঁরা এক জোট হয়ে নৌকার জন্য ভোট চাইছেন।

এ ব্যাপারে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি খান মনিরুল মনি পল্টন জানান, আমি কারো পক্ষেই ভোট চাইতেছি না। তবে উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টি ইউনিয়নের বিএনপি নেতারা বিভিন্ন দলের হয়ে নির্বাচন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আউটশাহী ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রহমতুল্লাহ নৌকা প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার কথা অস্বীকার করে জানান, আমি বিএনপি প্রার্থীর পক্ষেই কাজ করছি।

জনকন্ঠ

Comments are closed.