অপবাদ সইতে না পেরে গৃহবধুর আত্মহননের চেষ্টা!

suicide (2)লৌহজংয়ে স্বামী, শ্বশুর-শ্বাশুরী-ননদ ওস্থানীয় মেম্বারের দেয়া অপবাদ সইতে না পেরে গায়ে কেরোসিন ঢেকে বিউটি বেগম (৩২) আহননের চেষ্টা চালায়। তার শরীরের ৯০ ভাগ অগ্নিদগ্ধ হয়েছে। শুক্রবার বিকালে বেঁচে থাকার সম্ভবনা নেই জানিয়ে ডাক্তার তাকে ৪ ঘন্টা সময় দিয়েছে। গৃহবধু এখন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। যে কোন সময় নিভে যাবে তার প্রাণ প্রদীপ।

অগ্নিদগ্ধ গৃহবধু বিউটি বেগমের চাচা আব্দুল ওহাব শেখ জানান, তার ভাতিজি বিউটি বেগমকে গত ১৫ বছর আগে লৌহজংয়ের হাটভোগদিয়া গ্রামের জব্বার খানের ছেলে আল আমিন খানের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের ঘরে চারটি ছেলে মেয়ে আসে। গত কিছু দিন জাবৎ শ্বশুর বাড়ির লোকজন বিউটিকে পাশের বাড়ীর বাদশা হাওলাদারকে জাড়িয়ে পরকীয়ার অভিযোগ দিয়ে আসছিল। এ নিয়ে তার স্বামী আল আমিন, শ্বশুর জব্বার খান, শ্বাশুরী আমেনা বেগন ও ননদ কাউসারী বেগম তাকে নানা কথা বলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে। শুক্রবার সকালে সালিশের কথা বলে স্থানীয় মনসুর মেম্বার বাড়িতে আসলে বিউটিকে এ নিয়ে নানা অপবাদ দেয়া হয়। অপবাদ সইতে না পেরে বিউটি বাড়িতে থাকা কেরোসিন তেল গায়ে ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্ম হত্যার চেষ্টা করে। এতে সে মারাত্মকভাবে অগ্নিদগদ্ধ হলে তাকে প্রথমে লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ণ ইউনিটে নিয়ে গেলে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে চিকিৎসক জানিয়েছে, সে বড় জোর চার ঘন্টা বেচে থাকতে পারে। বিউটির শরীরের ৯০ ভাগ অগ্নিদগদ্ধ হয়েছে।

লৌহজং থানার ওসি মোল্লা জাকির হোসেন জানিয়েছেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন, এ ব্যপারে স্বামী, শ্বশুর স্বাশুরী, ননদ, মনসুর মেম্বার, বাদশা মেখ ও তার স্ত্রীসহ মোট ৭ জানকে আসামী করে একটি মামলার প্রক্রিয়া চলছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনকন্ঠ

Comments are closed.