পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে

ব্রিটিশ তদারকি প্রতিষ্ঠান নিয়োগ
মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল: পদ্মা সফলতার ঝিলিক ছড়াচ্ছে। খরস্রোতা এ নদীতে সকল চ্যালেঞ্জ সফলভাবে মোকাবেলা করে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ। মূল সেতুর পাইল স্থাপনের সংখ্যা আরও বেড়েছে। ইতোমধ্যেই ছয়টি পাইল স্থাপন হয়ে গেছে। এর মধ্যে ৭ নম্বর পিলারে চারটি এবং ৬ নম্বর পিলারে দুটি পাইল স্থাপন হয়েছে। এছাড়াও ৭ ও ৬ নম্বর পিলারে আরও একটি করে পাইল স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। একই সময়ে মাওয়া থেকে জাজিরা পাড় পর্যন্ত চলছে মাটি পরীক্ষা, ট্রায়াল পাইল ও টেস্ট পাইলসহ নানা কাজ। চারদিকেই তাই নির্মাণযজ্ঞ।

নদী শাসনসহ অন্যান্য কাজও এগিয়ে চলছে। পদ্মা নদীর ভাঙ্গনপ্রবণ দুই তীর শান্ত করতে চলছে বিশাল আয়োজন। যে নদীটি প্রতি বছর কিছুটা সরে যাচ্ছিল তার গতিপথ রক্ষায় পরিকল্পিতভাবে চলছে নদী শাসন প্রক্রিয়া। সাড়ে সাত কোটি ব্লক ব্যবহার করা হবে এখানে। আরও নতুন খবর হচ্ছে- পদ্মা সেতুতে ম্যানেজমেন্ট সাপোর্ট কনসালট্যান্ট নিয়োগ করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের ‘হাই পয়েন্ট রেন্ডেন্ট’ নামের পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটি পুরো পদ্মা সেতুর কাজ ম্যানেজমেন্ট তথা তদারকি করবে। প্রতিষ্ঠানটিতে যুক্তরাজ্য ছাড়াও জাপান এবং বাংলাদেশী বিশেষজ্ঞ রয়েছেন। এই প্রতিষ্ঠান পহেলা মার্চ থেকে কার্যক্রম শুরু করছে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ১৬৮ কোটি টাকায় চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি সেতু নির্মাণকাজ ছাড়াও পরবর্তীতে টোল অপারেটর নিয়োগ এবং ব্যবস্থাপনাও তদারকি করবে। প্রথম থেকেই পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে কর্মরত রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার ‘কোরিয়া এক্সপ্রেসওয়ে কর্পোরেশন’ ও সহযোগী প্রতিষ্ঠান। এখনও নতুন এই পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটি সবকিছুরই তদারকি করবে। এতে সেতুর কাজের সঠিক মান নিশ্চিতসহ সেতু নির্মাণ ব্যবস্থাপনা আরও সুচারু হবে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।

মাওয়ার পদ্মা সেতুর নদী শাসনের ড্রেজিং সম্পন্ন হয়েছে। এক মিলিয়ন (১০ লাখ) ঘনমিটার বালু অপসারণ করা হয়েছে। এখন জাজিরা পয়েন্টে ড্রেজিং চলছে। ড্রেজিংয়ের বালু পাইনপাড়া চরে রাখা হচ্ছে। পানির নিচে থাকা এই চর এখন ফসল উপযোগী হবে। এখানে এক মিলিয়ন ঘনফুট বালু অপসারণ হবে। আরও দু-এক সপ্তাহ এখানে ড্রেজিং হওয়ার কথা রয়েছে।

জনকন্ঠ

Comments are closed.