শতবর্ষী গুলমালা: ঔষধের দেনা পরিষোধ করতে ভিক্ষা করছেন!

হাত মোখের চামড়ায় গভির ভাজ। বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছে গুলমালা। সোজা হয়ে দাড়বার শক্তি নেই শরীরে। হাতের মধ্যে বাঁশের একটি লাঠি। এই লাঠিই ভরসা তার। একটু হাটার পরেই হাফিয়ে উঠেন তিনি। বড় বড় শ্বাস প্রশাস নিতে শুরু করেন। কিছুক্ষন হাটার পর লম্বা শ্বাস প্রশাস নেওয়ার ফাঁকে ভিক্ষার কাজটিও সারেন তিনি। তার সাথে এই প্রতিবেদকের টঙ্গীবাড়ী বাজারে দেখা হলেই বয়স কত জানতে চাইলে জানায় ১০০ একটু বাকি আছে।

এই বয়সে ভিক্ষা করছেন জানতে চাইলে সে জানায়, কিছুদিন আগে গুলমালা অসুস্থ হয়ে গিয়েছিলো। সেই সময় তাকে সুস্থ করতে স্যালাইন দিতে ও ঔষধ খেতে হড। তাতে ১হাজার টাকা তার ভাসুরের ছেলেদের কাছ হতে ঋণ করতে হয়। আর সেই টাকা পরিশোধ করতেই ভিক্ষা করছেন তিনি। স্বামী ১০ বছর হয় মৃত্যূবরণ করেছেন। ছেলে সন্তান নেই। ৪টি মেয়ে। সবাইকে বিয়ে দিয়ে দিয়েছেন। এক মেয়ের সাথে ঘর সংসার করলেও মেয়ে জামাতার কোন রকম ভাত কাপর দেওয়ার শক্তি থাকলেও ঔষধের টাকা পরিশোধ করার ক্ষমতা নেই। গুলমালা আরো জানান অনেকদিন হয় মাছ মাংস খাওয়া হয়না তার কোন রকম শাকপাতা খেয়েই মেয়ে জামাই সংসারে বেচেঁ আছে সে। তার বাড়ি উপজেলার মালিগাওঁ গ্রামে।

বিক্রমপুর চিত্র

Comments are closed.