জেলা যুবলীগ: নতুন মুখ হিসেবে মিথুন ও রাজনের সম্ভাবনা

অনেক দিন ধরে জেলা যুবলীগ কমিটি গঠনের দিকে যাচ্ছে বলে বাজারে জোর গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। তবে কমিটি গঠনের কোন আলোর দিশা দেখা যাচ্ছে না। পদ পেতে পারে এমন নেতা কিংবা পদ নাও পেতে পারে এমন অনেক নেতা কর্মীর মাঝে বছরের পর কমিটি না হওয়ায় মনের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করতে দেখা যাচ্ছে। অনেকেই আবার মনের দু:খে নানা রকম মন্তব্য ছুড়ে দিচ্ছেন। আসলেই জেলা যুবলীগের কমিটি কবে হবে!

এক যুগের বেশি সময় ধরে একই কমিটি মুন্সীগঞ্জ জেলায় নেতৃত্ব দিচ্ছে। সেই কমিটির নেতারা এই সময়ের মধ্যে খুব একটা ভালো কাজ দেখাতে পারেনি বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে আসছে কমিটিতে নেতৃত্বেতে কিছু নতুন মুখ আসতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করছে। তবে শেষ পর্যন্ত আসলে কি হয় তা বলা মুশকিল।

পশ্চিমা রাজনীতির নেতৃত্ব হিসেবে জেলা কমিটির সভাপতি পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আসতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করছে। তবে তার সময়ে এখানে যুবলীগের কোন কাজ হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। তার সময়ে এখানে কোন সভা সমাবেশ পর্যন্ত হয়নি। তিনি শুধু নিজের পদ পাওয়ার জন্য রাজনীতি করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার সময়ের কাজের মূল্যায়ন করা হলে আর তাকে কোন পদ না দিলে ভালো হয় বলে তৃনমূলের নেতারা মনে করেন।

বর্তমান পদের সভাপতি আক্তারুজ্জামান রাজিবকে হয়তোবা আর সভাপতি করা নাও হতে পারে বলে শেষ খবরে জানা গেছে। তবে রাজনীতি চাঙ্গা করতে তার ছোট ভাইকে যুবলীগের কমিটিতে আনা হতে পারে বলে খবর পাওয়া গেছে।

সাধারণ সম্পাদক পদে নতুন মুখ হিসেবে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনিসুজ্জামান আনিসের ছোট ছেলে জালাল উদ্দিন রুমি রাজনকে চমক হিসেবে দেখা যেতে পারে বলে অনেকে ধারণা করছে। বংশপরাক্রমার ধারাবাহিক হিসেবে এ পদে রাজনের আভির্ভাব ঘটতে পারে বলে অনেকেই মনে করে।

মুন্সীগঞ্জ ৩ আসনের সাংসদ মৃণাল কান্তি দাসের অনুসারি আবু বকর সিদ্দিক মিথুন জেলা যুবলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে লড়াইয়ে মাঠে থাকবেন বলে শোনা যাচ্ছে।

বিক্রমপুর সংবাদ

Comments are closed.